হাজী সেলিমের প্রটোকল কর্মকর্তা দিপু ৩ দিনের রিমান্ডে

হাজী সেলিমের প্রটোকল কর্মকর্তা দিপু ৩ দিনের রিমান্ডে

নৌ বাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধরের মামলায় হাজী সেলিমের প্রটোকল কর্মকর্তা এ বি সিদ্দিক দিপুকে ৩ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) বিকেলে ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক সত্যব্রত শিকদার দিপুর ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। তবে, হাজী সেলিমের পুত্র এরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী মো. মিজানকে আদালতে হাজির না করায় তাদের রিমান্ড শুনানি হয়নি।

এর আগে, মঙ্গলবার ভোরে টাঙ্গাইল থেকে গ্রেপ্তার করা হয় এ বি সিদ্দিক দিপুকে। টাঙ্গাইলে এক বন্ধুর বাড়িতে আত্মগোপনে ছিলেন দিপু।

এদিকে, নৌ বাহিনী কর্মকর্তাকে মারধরের মামলায় এখন পর্যন্ত চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। গ্রেপ্তার হওয়াদের মধ্যে ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের ছেলে ও ডিএসসিসির ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এরফান সেলিম, তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ জাহিদ এবং তার গাড়িচালক মিজানুর রহমানকে গতকাল সোমবার গ্রেপ্তার করা হয়।

প্রসঙ্গত, রবিবার (২৫ অক্টোবর) রাতে রাজধানীর কলাবাগান বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ইরফানের গাড়ি মোটরসাইকেলে থাকা নৌ বাহিনীর কর্মকর্তা লে. ওয়াসিম আহমেদ খান ও তার স্ত্রীকে ধাক্কা দেয়। ধাক্কা সামলে ওয়াসিম গিয়ে গাড়িটির সামনে দাঁড়ালে তাকে মারধর করেন ইরফান সেলিম ও তার সহযোগিরা। পরে, রাতেই ধানমণ্ডি থানায় জিডি করেন ভুক্তভোগী। আর সোমবার সকালে এরফানসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে ধানমন্ডি থানায় ‘মারধর ও হত্যাচেষ্টা’ মামলা করেন নৌ বাহিনীর ওই কর্মকর্তা।

এর পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল সোমবার হাজী সেলিম ও এরফান সেলিমের বাসায় অভিযান চালায় র‍্যাব সদস্যরা। অভিযানে একটি অবৈধ পিস্তল, এয়ারগান, বিদেশি মদ, বিয়ার, ৩৮টি ওয়াকিটকি, ৫টি রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি মেশিন, নিরাপত্তার কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ডিভাইস এবং পুলিশের ব্যবহৃত হ্যান্ডকাফ উদ্ধার করা হয়।

Leave a Reply