ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় আগাম প্রস্তুতি

ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় আগাম প্রস্তুতি

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় আগাম প্রস্তুতিমূলক ব্যবস্থা হিসেবে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় আগাম প্রস্তুতিমূলক কার্যক্রম গ্রহণের লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার রাতে দূুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি বিষয়ক এক জরুরী সভায় এসব সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব মোঃ মোহসীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আতিকুল হকসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

এতে বলা হয়েছে, এ সভায় ঘূর্ণিঝড়ের পূর্ব প্রস্তুতি হিসেবে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে আগাম সতর্কতামূলক বিজ্ঞপ্তি প্রচারের মাধ্যমে জনগণকে সচেতন করা ও উপকূলীয় অঞ্চল সংলগ্ন জেলাগুলোর জেলা-প্রশাসন কার্যালয়ে সার্বক্ষণিক কন্ট্রোল রুম খোলার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এছাড়াও উপকুলীয় অঞ্চলের প্রত্যেক জেলার আশ্রয় কেন্দ্রগুলোকে পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করার পাশাপাশি এসব কেন্দ্রে শুকনা খাবার এবং শিশু খাদ্যসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপকরণের ব্যবস্থা করা ও জনগণকে আশ্রয়কেন্দ্রে নেয়ার জন্য পর্যাপ্ত যানবাহন প্রস্তুত রাখারও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

এছাডও ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির (সিপিপি) আওতায় প্রশিক্ষিত ৭৪ হাজার স্বেচ্ছাসেবক কর্মী বাহিনীও দুর্যোগ মোবিলায় সর্বদা প্রস্তুত থাকবে।

Leave a Reply