টুর্নামেন্ট নিয়ে আমি খুশি: ডমিঙ্গো

টুর্নামেন্ট নিয়ে আমি খুশি: ডমিঙ্গো

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ হয়েছেন বাংলাদেশের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা। কোনো দলই বড় স্কোর গড়তে পারেনি। ফিল্ডিংও খুশি হওয়ার মতো নয়। তবে পেস বোলাররা ছিলেন সেরা ছন্দে। যেটা অন্যদের মতো মুগ্ধ করেছে জাতীয় দলের প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোকে।

বৃহস্পতিবার ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ডমিঙ্গো জানান, মাঠের খেলায় ক্রিকেটারদের একাগ্রতাকে গুরুত্ব দিচ্ছেন তিনি, ‘টুর্নামেন্ট নিয়ে আমি খুশি। চমৎকার আন্তরিকতা নিয়ে খেলা হচ্ছে। সবাই চেষ্টা করছে। তবে বোলাররা ভালো করছে। ছেলেরা প্রায় সাত মাস খেলায় নেই। উইকেট সহজ ছিল না। যে কারণে ব্যাটসম্যানদের সংগ্রাম করতে হয়েছে। এর মধ্যেও ক’জন ভালো করেছে।’

ডমিঙ্গো জানান, গত সাত-আট মাস ধরে তারা ক’জন তরুণ প্রতিভাবান পেসার খুঁজছিলেন। এখন এক দল ফাস্ট বোলার দেখে খুশি তিনি। কোচের মতে, ‘তাসকিন, ফিজ, আল-আমিন, হাসান মাহমুদ, খালেদ, শরিফুলদের নিয়ে আন্তর্জাতিকে ভালো খেলার মতো ছয়-সাতজন ফাস্ট বোলার আছে। তাদের খুব ভালো বোলিং দেখেছি। তারা পরিশ্রম করেছে। তাসকিনের গড়ন দেখুন কিংবা রুবেল-খালেদকে দেখুন, ফিটনেস নিয়ে তারা সত্যিই কঠোর পরিশ্রম করেছে।’

পাঁচ দল নিয়ে প্রস্তাবিত টি-২০ টুর্নামেন্টে ফিরতে পারেন সাকিব। তিনিও ফিটনেস নিয়ে কাজ করছেন। কোচের সঙ্গে তার এ ব্যাপারে আলাপও হয়েছে। ডমিঙ্গো বলেছেন, ‘ওর সঙ্গে বুধবার কথা হয়েছে। সে সোজা এসে ঢুকে পড়বে টি২০ টুর্নামেন্টে। এসেই অলৌকিক পারফর্ম করবে, তা নয়। সবাইকে ধৈর্য ধরতে হবে। এক বছরের মতো সে ক্রিকেট খেলে না। তবে বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার সে। আমরা জানি, সে মানসম্পন্ন খেলোয়াড়। ২০২১ মৌসুমে বাংলাদেশের জন্য দুর্দান্ত ছন্দে দেখতে চাই তাকে।’

এছাড়া রাসেল ডমিঙ্গোর নজর কেড়েছে অনূর্ধ্ব-১৯ দল থেকে উঠে আসা ক্রিকেটাররা। কোচ জানান, রিশাদ দারুণ বল করেছে। হৃদয়, জয়, ইরফানের খেলা ভালো লেগেছে তার। সিনিয়র-জুনিয়র সমন্বয়ও ভালো লেগেছে তার। এছাড়া ঘরোয়া এই আসর দিয়েই ক্যাপ্টেনসি নিয়ে তামিমের সঙ্গে আলোচনা হচ্ছে বলে জানিয়েছন কোচ। কোচের বিশ্বাস দারুণ একজন অধিনায়ক হিসেবে দেখার যাবে তামিমকে।

Leave a Reply