‘শান্তি চুক্তি’ সত্ত্বেও তালেবান অবস্থানে বিমান হামলা চালাল আমেরিকা

‘শান্তি চুক্তি’ সত্ত্বেও তালেবান অবস্থানে বিমান হামলা চালাল আমেরিকা

আফগানিস্তানের তালেবানের সঙ্গে ‘শান্তি চুক্তি’ সই করা সত্ত্বেও দেশটির দক্ষিণাঞ্চলে এই গোষ্ঠীর অবস্থানে বিমান হামলা চালিয়েছে মার্কিন বাহিনী। তালেবানের পক্ষ থেকে ওই এলাকায় বড় ধরনের অভিযান চালানোর পর এ বিমান হামলা চালানো হয়।

আফগানিস্তানের তালেবানের সঙ্গে ‘শান্তি চুক্তি’ সই করা সত্ত্বেও দেশটির দক্ষিণাঞ্চলে এই গোষ্ঠীর অবস্থানে বিমান হামলা চালিয়েছে মার্কিন বাহিনী। তালেবানের পক্ষ থেকে ওই এলাকায় বড় ধরনের অভিযান চালানোর পর এ বিমান হামলা চালানো হয়।

আফগানিস্তানে মোতায়েন মার্কিন বাহিনীর কমান্ডার কর্নেল সনি লিজেট বলেছেন, তালেবানের হামলা থেকে আফগান সেনাবাহিনীকে রক্ষা করার লক্ষ্যে গত দু’দিনে হেলমান্দ প্রদেশে তালেবানের কয়েকটি অবস্থানে বিমান হামলা চালিয়েছে মার্কিন সেনাবাহিনী। তিনি আরো বলেন, তালেবানের যেকোনো ধরনের হামলা থেকে আফগান সেনাবাহিনীকে রক্ষা করতে সহযোগিতা করে যাবে মার্কিন সেনাবাহিনী।

এদিকে, আফগানিস্তানে মোতায়েন মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল স্কট মিলার অবিলম্বে হামলা বন্ধ করতে তালেবানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “তালেবানকে অবিলম্বে হেলমান্দ প্রদেশে হামলা এবং সারাদেশে সহিংসতা বন্ধ করতে হবে। এ ধরনের হামলা তালেবান-মার্কিন চুক্তির পরিপন্থি এবং চলমান দোহা শান্তি আলোচনাকে অবজ্ঞা করার শামিল।”

আফগানিস্তানে তালেবানের বিরুদ্ধে প্রায় দুই দশক যুদ্ধ করার পর গত ফেব্রুয়ারিতে এই গোষ্ঠীর সঙ্গে শান্তি চুক্তি সই করে আমেরিকা। চুক্তিতে তালেবানের পক্ষ থেকে নিরাপত্তার নিশ্চয়তার বিপরীতে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের কথা বলা হয়। সেইসঙ্গে দেশে পরিপূর্ণ শান্তি প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে আফগান সরকারের সঙ্গে শান্তি আলোচনায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয় তালেবান।

সেই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে কাতারের রাজধানী দোহায় কাবুল সরকারের সঙ্গে তালেবানের শান্তি আলোচনা চলমান থাকা অবস্থায় আফগানিস্তানের বিভিন্ন স্থানে দু’পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে।

Leave a Reply