‘নির্ধারিত মান বাস্তবায়নে বিএসটিআই আরো উদ্যোগী ভূমিকা পালন করবে’

‘নির্ধারিত মান বাস্তবায়নে বিএসটিআই আরো উদ্যোগী ভূমিকা পালন করবে’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে অধিক সংখ্যক মান প্রণয়ন ও নির্ধারিত মান বাস্তবায়ন করতে বিএসটিআই আরো উদ্যোগী ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করেছেন।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে রূপান্তরের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে অধিক সংখ্যক মান প্রণয়ন ও নির্ধারিত মান বাস্তায়ন করতে বিএসটিআই আরো উদ্যোগী ভূমিকা পালন করবে বলে আমি আশা করি।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল বিশ্ব মান দিবস উপলক্ষ্যে আজ দেয়া এক বাণীতে আরো বলেন, বিশ্বায়নের যুগে পরিবেশের নিরাপত্তা রক্ষায় এবং সকলের জন্য নিরাপদ পৃথিবী গড়তে আন্তর্জাতিক মান -এর ভূমিকা অত্যন্ত কার্যকর ও গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি বলেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সস্টিটিউট (বিএসটিআই)-এর উদ্যোগে ৫১তম বিশ্ব মান দিবস পালন করা হচ্ছে জেনে তিনি আনন্দিত। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য ‘পৃথিবী সুরক্ষায় মান’। বর্তমান বিশ্বে দ্রুত শিল্পায়ন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রেক্ষাপট বিবেচনায় এবারের প্রতিপাদ্যটি অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে বলে তিনি মনে করি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর এ দেশকে সোনার বাংলাদেশে রূপান্তরের লক্ষ্যে কৃষি ও শিল্পখাতের উন্নয়নে গুরুত্বারোপ করে বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ও ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় জাতীয় মান সংস্থা বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সস্টিটিউটের যাত্রা শুরু হয়, যা ১৯৭৪ সালে আন্তর্জাতিক মান সংস্থা International Organization for Standardization (ISO)-এর সদস্যপদ লাভ করে।

শেখ হাসিনা বলেন, আধুনিক সভ্যতার প্রয়োজনে বিশ্বব্যাপী ব্যাপক শিল্পায়ন ইতিবাচক ফলাফলের পাশাপাশি পরিবেশ ও জনজীবনে নেতিবাচক প্রভাবও ফেলেছে। এক্ষেত্রে যথাযথ কর্মপরিকল্পনা ও আন্তর্জাতিক মান অনুসরণের বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। আন্তর্জাতিক মান অনুসরণ করে বাংলাদেশের প্রণীত জাতীয় মান পরিবেশ বিপর্যয় ও জনজীবনের ওপর নেতিবাচক প্রভাব থেকে উত্তরণ ঘটাতে সহায়ক ভূমিকা রাখবে। এ ক্ষেত্রে সকলের সুরক্ষায় উৎপাদিত পণ্য ও সেবা প্রদানে নির্ধারিত ‘মান’ বজায় রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করতে হবে।

বিএসটিআই দেশের খ্যাতিমান বিজ্ঞানী, প্রযুক্তিবিদ এবং বিশেষজ্ঞগণের সহায়তায় তাদের গবেষণালব্ধ জ্ঞান কাজে লাগিয়ে পণ্য ও সেবার মান প্রণয়ন করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিএসটিআই এ পর্যন্ত ৩৯০০টি জাতীয় মান প্রণয়ন করেছে। এ সকল মান-এর সঠিক প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন নিরাপদ পরিবেশ ও স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করবে।

এছাড়াও পণ্য ও সেবার মান নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সস্টিটিউট আইন-২০১৮ প্রণয়ন করা হয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা শিল্পসমৃদ্ধ দেশ গঠনে বিএসটিআই জাতীয় মান প্রণয়ন ও উন্নয়ন বাস্তবায়নের কাজ অব্যাহত রেখে বিভিন্ন পণ্যের মানের বিষয়ে জনগণের আস্থা অর্জন করবে এবং মানসম্মত সেবা সকলের নিকট পৌঁছে দেবে- এ প্রত্যাশা করেন।

প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব মান দিবস উপলক্ষ্যে গৃহীত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

Leave a Reply