মেয়াদ শেষের ৩ মাসের মধ্যেই করতে হবে ‍সিটি নির্বাচন, মন্ত্রিসভায় বিল পাস

মেয়াদ শেষের ৩ মাসের মধ্যেই করতে হবে ‍সিটি নির্বাচন, মন্ত্রিসভায় বিল পাস

স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) (সংশোধনী) বিল-২০২০ খসড়া অনুসারে মেয়াদ শেষ হওয়ার ছয় মাসের পরিবর্তে তিন মাসের মধ্যেই সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আয়োজন করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে সিটি নির্বাচনের আয়োজনের সময়সীমা কমিয়ে করা আইনের খসড়া নীতিগতভাবে অনুমোদিত দেয়া হয়েছে।

শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়াল বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন এবং মন্ত্রিসভার অন্যান্য সদস্যরা সচিবালয় থেকে এতে যুক্ত হয়েছিলেন।

বৈঠকে শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘ছয় মাস বা ১৮০ দিন কার্যত অনেক দীর্ঘ সময়। শপথ নেয়ার পরেও তাদের (নির্বাচিত প্রতিনিধিদের) দায়িত্ব গ্রহণের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। তাই, বিলটিতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। এখন থেকে তিন মাসের (৯০ দিনের) মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে হবে।’

তিনি বলেন, খসড়া আইন অনুসারে শপথ গ্রহণের ১৫ দিনের মধ্যে নবনির্বাচিত প্রতিনিধিদের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করা হবে। তাদেরকে (নবনির্বাচিত প্রতিনিধিদেরকে) শপথ নেয়ার ১৫ দিনের মধ্যে প্রথম সভার আয়োজন করতে হবে এবং এ সভার আয়োজনের মধ্যে দিয়ে আগের করেপোরেশন বিলুপ্ত হয়ে যাবে।

প্রস্তাবিত আইন অনুসারে, সিটি করপোরেশনের মেয়র ও কাউন্সিলররা বিদ্যমান তিন মাসের পরিবর্তে এক মাসের বাৎসরিক ছুটি কাটাতে পারবেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘মেয়র ও কাউন্সিলরদের তিন মাসের বাৎসরিক ছুটি কমিয়ে এক মাস করা হয়েছে। মন্ত্রিসভা মনে করছে এটা (তিন মাস) খুব বেশি সময়। তারা জনপ্রতিনিধি হলেও তাদের কার্যনির্বাহী কার্যাবলী, নিয়মিত কার্যাবলী এবং আর্থিক কর্তৃত্বের দায়িত্ব পালন করতে হয়।’

মন্ত্রিসভার এ বৈঠকে বাংলাদেশ বিমান করপোরেশন (বাতিল) বিল-২০২০ এর খসড়া নীতিগতভাবে অনুমোদিত হয়েছে। ২০১১ সালে বাংলাদেশ বিমান সংস্থায় পরিণত হওয়ায় বিমান করপোরেশন অধ্যাদেশ-১৯৭৭ আর প্রয়োজন নেই।

অধ্যাদেশ বাতিল হলেও এতে বর্ণিত প্রাসঙ্গিক কাজগুলো সংস্থাকে প্রদান করা হয়েছে বলে জানান খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে স্বাক্ষরিত অগ্রাধিকারভিত্তিক বাণিজ্য চুক্তির (পিটিএ) খসড়া অনুমোদন করেছে এবং এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে ক্রস-বর্ডার পেপারলেস বাণিজ্যের সুবিধার্থে ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তির অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ২০১০ সাল থেকে ভুটানের ১৮টি পণ্য বাংলাদেশের বাজারে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার ভোগ করছে, অন্যদিকে ৯০টি বাংলাদেশি পণ্য ভুটানের বাজারে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার সুবিধা পাচ্ছে। পরে বাংলাদেশের বাজারে আরও কিছু পণ্যের শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার চেয়েছিল ভুটান।

এছাড়াও, ৮ আগস্টকে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্মদিন হিসেবে পালনের প্রস্তাবে সায় দিয়েছে মন্ত্রিসভা এবং দিনটিকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ জারি করা প্রজ্ঞাপনের ক সিরিয়ালে (তালিকায়) অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

Leave a Reply