মারা গেলেন আরো ৩৯ জন, শনাক্ত ২,৯৭৭

মারা গেলেন আরো ৩৯ জন, শনাক্ত ২,৯৭৭

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণে আরো ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৯৭৭ জন। এ নিয়ে দেশে করোনায় এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে তিন হাজার ৩০৬ জন। আর সব মিলিয়ে শনাক্ত হয়েছেন দুই লাখ ৪৯ হাজার ৬৫১ জন।

আজ বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সরকারি বুলেটিনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। বুলেটিন প্রকাশে অংশ নেন জাতীয় প্রতিষেধক ও সামাজিক চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান (নিপসম)-এর পরিচালক অধ্যাপক ডা. বায়েজিদ খুরশীদ রিয়াজ।

ডা. বায়েজিদ বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে দেশে আরো ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এঁরা ৩২ জন পুরুষ এবং সাতজন নারী। এঁদের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৯ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১৩ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে সাতজন এবং অন্যান্য বিভিন্ন বয়সের ১০ জন। এ নিয়ে দেশে করোনায় এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে তিন হাজার ৩০৬ জনের।

এ পর্যন্ত যাঁরা মৃত্যুবরণ করেছেন তাঁদের মধ্যে পুরুষ দুই হাজার ৬০৬ জন এবং নারী ৭০০ জন। আর বয়স বিবেচনায় এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি মৃত্যুবরণ করেছেন ষাটোর্ধ এক হাজার ৫৪৯ জন। সর্বোচ্চ মৃত্যু সংখ্যা অনুযায়ী এর পর রয়েছেন ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৯৪৭ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৪৫৮ জন এবং ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ২১৪ জন। বাকিরা অন্যান্য বয়সের।

জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় যে ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে তাঁরা ঢাকা বিভাগের ১৭ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের সাতজন, খুলনা বিভাগের চারজন, রাজশাহী বিভাগের তিনজন, রংপুর বিভাগের তিনজন, বরিশাল বিভাগের দুইজন, সিলেট বিভাগের দুইজন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের একজন। হাসপাতালে মারা গেছেন ৩০ জন এবং বাসায় ৯ জন।

বিভাগ অনুযায়ী এ পর্যন্ত যাঁরা মৃত্যুবরণ করেছেন তাঁরা ঢাকা বিভাগের এক হাজার ৫৮৪ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৭৯১ জন, রাজশাহী বিভাগের ২০২ জন, খুলনা বিভাগের ২৪২ জন, বরিশাল বিভাগের ১৩০ জন, সিলেট বিভাগের ১৫৬ জন, রংপুর বিভাগের ১৩০ জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের ৭১ জন।

এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন দুই হাজার ৭৪ জন। এ নিয়ে দেশের করোনা সংক্রমণ থেকে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৪৩ হাজার ৮২৪ জন।

ডা. বায়েজিদ জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১৩ হাজার ১৮৯টি। একই সময় পূর্বের নমুনাসহ পরীক্ষা হয়েছে ১২ হাজার ৭০৮টি। এর মধ্যে করোনা রোগী হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে দুই হাজার ৯৭৭ জনকে। এ নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন দুই লাখ ৪৯ হাজার ৬৫১ জন। আর এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১২ লাখ ২৫ হাজার ১২৪টি।

আইসোলেশন প্রসঙ্গে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছে আরো ৯৫৫ জনকে। একইসময় আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৭৩৬ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে গেছেন ৫৪ হাজার ৩৬০ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৩৫ হাজার ৬৮৬ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৮ হাজার ৬৭৪ জন।

কোয়ারেন্টিন প্রসঙ্গেও তথ্য দেওয়া হয় বুলেটিনে। বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিনে গেছেন দুই হাজার ৩৯৯ জন। এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে গেছেন মোট চার লাখ ৪৬ হাজার ৭৮ জন। ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় পেয়েছেন দুই হাজার ৯১৯ জন। এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় পেয়েছেন তিন লাখ ৯৩ হাজার ২৪৮ জন। ছাড়ের পর বর্তমানে হোম এবং প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫২ হাজার ৮৩০ জন।

বুলেটিনে আরো জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের স্বাস্থ্য বাতায়ন এবং আইইডিসিআর’র হটলাইনে কল এসেছে ৭১ হাজার ৯৫১টি। এ নিয়ে এ পর্যন্ত মোট ফোনকল এসেছে এক কোটি ৮৩ লাখ ২৫ হাজার ৪৬৮টি। এসব কলে সবাইকে স্বাস্থ্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

টেলিমেডিসিন সেবায় প্রতিদিন ৩৫ জন চিকিৎসক এবং ১০ জন স্বাস্থ্যতথ্য কর্মকর্তা দুই শিফটে মোট ৯০ জন টেলিমেডিসিনে করোনা সংক্রান্ত স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় তাঁদের স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করেছেন চার হাজার ৩২৯ জন। এ পর্যন্ত এক লাখ ৬৯ হাজার ২৫০ জন এই সেবা গ্রহণ করেছেন বলে জানানো হয় বুলেটিনে।

Leave a Reply