পল্লবী থানায় বিস্ফোরণ: কেটে ফেলতে হলো রিয়াজের হাতের কবজি

পল্লবী থানায় বিস্ফোরণ: কেটে ফেলতে হলো রিয়াজের হাতের কবজি

রাজধানীর মিরপুরের পল্লবী থানায় বিস্ফোরণের ঘটনায় আহত রিয়াজের বাম হাতের ক্ষতবিক্ষত কবজি কেটে ফেলেছেন চিকিৎসকরা।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) অস্ত্রোপচারের সময় কবজি কেটে ফেলতে হয়েছে। তার অবস্থা গুরুতর বলে জানা গেছে।

ঢামেকের জরুরি বিভাগের আবাসিক সার্জন ডা. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন এ তথ্য জানিয়েছেন।

ডা. আলাউদ্দিন জানান, পল্লবী থানায় বিস্ফোরণের ঘটনায় আহত পাঁচজন হাসপাতালে আনা হয়। তাঁদের দুইজন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে যান। একজনকে চক্ষু হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ কর্মকর্তা রুমি ও সিভিল রিয়াজকে ভর্তি রাখা হয়েছে। রিয়াজের বাম হাতের কবজি কেটে ফেলা হয়েছে। এছাড়া তার ডান হাতের একটি আঙুল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সেটিও রাখা যায়নি। তার পেটে বড় ধরনের ইনজুরি আছে। আর পুলিশ কর্মকর্তা রুমির পা ও হাতে জখম রয়েছে। তারা সবাই স্প্লিন্টারের আঘাতে আহত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

আজ বুধবার (২৯ জুলাই) ভোরে রাজধানীর পল্লবী থানায় এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে চার পুলিশ সদস্যসহ পাঁচজন আহত হন।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) ওয়ালিদ হোসেন বলেন, গতকাল মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) রাতে তিন সন্ত্রাসীকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের কাছে ওজন মাপার একটি ওয়েট মেশিনও জব্দ করা হয়। সেটি ডিউটি অফিসারের কক্ষে টেবিলে রাখা ছিল। সকাল ৭টার একটু আগে ওই ওয়েট মেশিনটি বোমার মতো বিস্ফোরিত হয়। এতে পাঁচজন আহত হন। এদের মধ্যে জিহাদ নামে একজন সিভিল স্টাফের অবস্থা গুরুতর। ওয়েট মেশিনের ভেতরে বোমা ছিল কি-না তা বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আহত রিয়াজ পল্লবী থানায় সিভিল হিসেবে কাজ করতেন বলে জানান তিনি।

ওয়ালিদ হোসেন আরো বলেন, আহতদের মধ্যে দুজনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এবং একজনকে জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর থানা এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে।

Leave a Reply