সীমান্তে উত্তেজনা কমাতে বৈঠকেই ভরসা, লাদাখ যাচ্ছেন রাজনাথ-নারাভানে

সীমান্তে উত্তেজনা কমাতে বৈঠকেই ভরসা, লাদাখ যাচ্ছেন রাজনাথ-নারাভানে

গালওয়ান সংঘর্ষের পর একের পর এক বৈঠক হচ্ছে। তবে সীমান্তে উত্তেজনা এখনো কমেনি। গত মঙ্গলবার চৌশলে ইন্দো-চীন সেনা কমান্ডারদের তৃতীয় বৈঠকেও ‘প্রকৃত সমাধানসূত্র’ বের হয়নি।

নিয়ন্ত্রণরেখা থেকে সেনাবাহিনী সরানোর বিষয়ে এখনো সেনাবাহিনী এবং কূটনৈতিক স্তরে বেশ কয়েকটি বৈঠক প্রয়োজন বলেই মনে করছে ভারতের সেনাবাহিনী।

গত মঙ্গলবার চৌশল সীমান্তে প্রায় ১১ঘণ্টার ম্যারাথন বৈঠক চলে। সেখানে ভারতের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ১৪ কোরের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরেন্দ্র সিংহ ও চীনের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ জিংজিয়াং মিলিটারি ডিস্ট্রিক্টের চিফ মেজর জেনারেল লিউ লিন।

জানা গেছে, পর্যায়ক্রমে এবং ধাপে ধাপে কিভাবে সেনাবাহিনী সরিয়ে নেওয়া হবে, দু’পক্ষে সেই বিষয়টিই অগ্রাধিকার দেওয়া হয় আলোচনা পর্বে।

তবে পরিস্থিতি ঠিক কোন পথে তার রেশ বুঝতে শুক্রবারই লাদাখ যাচ্ছেন ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং সেনাপ্রধান এম এম নারভানে।

জানা গেছে, লাদাখ সীমান্তে মোতায়েন করা সেনাবাহিনীর সঙ্গে কথা বলবেন মন্ত্রী। পরবর্তী কৌশল এবং পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করবেন সেনা কমান্ডারদের সঙ্গেও।

প্রসঙ্গত, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় ভারত-চীন সংঘর্ষের পর এই প্রথম লাদাখ যাচ্ছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ। এই বৈঠকে থাকবেন নর্দার্ন আর্মি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াই কে জোশি।

এদিকে বেইজিং থেকে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজান সাংবাদিকদের বলেন, উভয় পক্ষ কমান্ডার-স্তরের আলোচনার দফায় দফায় ঐক্যমত বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। অশান্ত পরিস্থিতির অচলাবস্থা কাটানোরও চেষ্টা চলছে।

তিনি আরো বলেন, চীন এ বিষয়কে স্বাগত জানাচ্ছে। আমরা আশা করছি একই লক্ষ্যে ভারত এবং চীন উভয়পক্ষই কাজ করবে। সামরিক এবং কূটনৈতিক স্তরের মাধ্যমে এই যোগাযোগ অব্যাহত থাকবে। আশা করা যায় পরিস্থিতি ঠিক হবে এবং সীমান্তের উত্তাপও কমবে।

Leave a Reply