করোনা-আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে বিচারকরা

করোনা-আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে বিচারকরা

আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্ত অঞ্চলে খাবার ও ঈদ উপহার বিতরণ করেছে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিসের দশম ব্যাচের বিচারকরা। ব্যক্তি উদ্যোগে ভোলা ও সাতক্ষীরা জেলায় সরাসরি করোনা ও ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে বিপর্যস্তদের মাঝে ঈদ উপহার তুলে দিয়েছেন তাঁরা।

স্থানীয় সামাজিক সংগঠনের মাধ্যমে বিভিন্ন অঞ্চলের প্রকৃত দরিদ্র ও অসহায় ২৩৩ জনকে এসব ঈদ উপহার পৌঁছে দেওয়া হয়। এছাড়া দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সহায়তা ও ঈদ উপহার পৌঁছে দেন বিচারকরা। ইতিপূর্বে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের মাধ্যমে অধস্তন আদালতের বিচারকরা তাঁদের একদিনের বেতন প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে জমা দেন।

আয়োকজরা জানান, মিনি ল স্কুলের মাধ্যমে চট্টগ্রাম অঞ্চলের ৩০ জন বিধবা নারীকে পৃথকভাবে ঈদ উপহার পৌঁছে দেওয়া হয়। তাঁদের কোনো আয় রোজগার ছিল না। করোনার কারণে কাজেও যেতে পারছিলেন না তাঁরা। এসব অসহায়, রোজগারহীন বিধবা নারীর পাশে দাঁড়িয়ে খুশির খোরাক জুগিয়েছেন জুডিশিয়াল সার্ভিসের দশম ব্যাচের বিচারকরা।

বিচারকরা জানান, আঞ্চলিক সংগঠন আশ্রয়’র মাধ্যমে মাদারীপুরে ২৫টি পরিবারকে ঈদ উপহার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। সাতক্ষীরায় করোনা এবং ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের কারণে বিপর্যস্ত ৪০টি পরিবার ঈদ উপহার ও অন্তত ১০ দিনের খাবার দেওয়া হয়েছে। ভোলায় একইভাবে করোনা ও ঘূর্ণিঝড়ে বিপর্যস্ত ১৫টি পরিবারকে ঈদ উপহার দেওয়া হয়েছে।

পিরোজপুরে দশম ব্যাচের এক বিচারক দ্বারা পরিচালিত স্বপ্নযাত্রা-৯৯ এর মাধ্যমে করোনার কারণে অসহায় হয়ে পড়া ২৩টি পরিবারকে ঈদ উপহার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এখানেও ঘূর্ণিঝড়ে বিপর্যস্তদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে।

কিশোরগঞ্জে দারুল আরকাম ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে ১০০টি পরিবারকে ঈদ উপহার পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে বৃদ্ধ এবং বিশেষ সুবিধা বঞ্চিতদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। প্রত্যেকটি প্যাকেটে চাল, ডাল, আলু, পেয়াজ, রসুন, তেল, সাবান, সেমাই, চিনিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী সরবরাহ করা হয়।

ঈদ উপহার বন্টন কার্যক্রমের প্রধান সমন্বয়ক ফরিদ উদ্দীন বলেন, সদিচ্ছা ও প্রচেষ্টা থাকা সত্ত্বেও দেশের লাখ লাখ দরিদ্র মানুষেকে লকডাউনের মধ্যে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেওয়া সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। দেশের দরিদ্র মানুষের দুরাবস্থার কথা চিন্তা করে আমরা দশম ব্যাচের বিচারকরা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে একটি ফান্ড গঠন করি। আমাদের সহকর্মীদের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ উপহার পৌঁছে দেওয়া হয়।

Leave a Reply