ভেন্টিলেটর কেনায় দুর্নীতি, বলিভিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী গ্রেপ্তার

ভেন্টিলেটর কেনায় দুর্নীতি, বলিভিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী গ্রেপ্তার

করোনাভাইরাস মহামারির লড়াইয়ে অতিরিক্ত দামে ভেন্টিলেটর কেনায় দুর্নীতির অভিযোগ এনে বলিভিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী মার্সেলো নাভাহাসভকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বুধবার বলিভিয়ান বিশেষ বাহিনীর প্রধান কর্নেল ইভান রোহাসকে উদ্ধৃত করে মার্কিন সম্প্রচারমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে অনিয়মের অভিযোগে নাভাহাস ছাড়াও আরো কয়েকজনকে শীর্ষ কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

দক্ষিণ আমেরিকার এই দেশটিতে সম্প্রতি করোনাভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় হাসপাতালে ভেন্টিলেটর বসানোর সিদ্ধান্ত নেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে মধ্যস্থতাকারী একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে স্পেনের কাছ থেকে ১৭০টি ভেন্টিলেটর কেনে। কিন্তু এর প্রত্যেকটি ভেন্টিলেটরের জন্য গুণতে হয় ২৭ হাজার ৬৮৩ মার্কিন ডলার (বাংলাদেশি প্রায় ২৩ লাখ ৫১ হাজার ৫৬৫ টাকা)। ১৭০টি ভেন্টিলেটরের দাম দাঁড়ায় প্রায় ৫ মিলিয়ন ডলার।

নাভাহাসভ মাত্র দেড় মাস হলো স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়েছেন। তার গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তার আইনজীবী রোসারিও ক্যানেডো। নিজের মক্কেলের গ্রেপ্তার হওয়ার ঘটনাকে ‘বাজে কাজ’ আখ্যা দিয়ে তিনি সাংবাদিকদের কাছে প্রশ্ন তুলেছেন, আমরা কি কোনও গণতান্ত্রিক দেশে বাস করছি? নাকি এটা কোনও স্বৈরাচারের পরিচালিত সর্বাত্মক কর্তৃত্বতান্ত্রিক সরকার?’

নাভাহাসের বিরুদ্ধে করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে বেশি দাম দিয়ে ভেন্টিলেটর কেনার অভিযোগ ছিল। অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট জিনাইন আনেজ টুইটারে লিখেছেন, একটি স্প্যানিশ কোম্পানির কাছ থেকে ১৭০টি ভেন্টিলেটর কিনতে ইন্টার আমেরিকান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক থেকে পাওয়া তহবিলের ২০ লাখ ডলার খরচ করা হয়েছে, যা অসামঞ্জস্যপূর্ণ।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এখনো কোনো অভিযোগপত্র দেয়নি। তবে গ্রেফতার হওয়ার পরপরই স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে নাভাহাসকে।

ভেন্টিলেটর কেনায় দুর্নীতির পূর্ণ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট আনেজ। স্বাস্থ্যমন্ত্রী আটক হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে তিনি টুইটার পোস্টে লেখেন, ‘আমরা তদন্ত চালিয়ে যাব, অপরাধী কে তা নিয়ে ভাবব না।’

ইন্টার আমেরিকান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক বিষয়টি জানার সঙ্গে সঙ্গে সম্ভাব্য অনিয়ম নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে।

উল্লেখ্য, দক্ষিণ আমেরিকার এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৪ হাজার ৪৮১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন ১৮৯ জন।

সূত্র- ফাইনান্সিয়্যাল টাইমস।

Leave a Reply