যুক্তরাজ্যকে বিশেষ তহবিল গঠনের অনুরোধ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর

যুক্তরাজ্যকে বিশেষ তহবিল গঠনের অনুরোধ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ থেকে তৈরি পোশাক খাতের আমদানি অব্যাহত রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে যুক্তরাজ্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। এক্ষেত্রে যুক্তরাজ্য সরকারকে ওই দেশের ক্রেতাদের জন্য একটি বিশেষ তহবিল গঠনের অনুরোধ করেন।
সোমবার (১৮ মে) যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ও কমনওয়েলথবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী লর্ড আহমেদের সঙ্গে ফোনে আলাপকালে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এ অনুরোধ জানান।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে মঙ্গলবার (১৯ মে) পাঠানো এক বার্তায় এ তথ্য জানানো হয়।
ফোনালাপে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী উল্লেখ করেন, তৈরি পোশাক খাতে ‍যুক্তরাজ্যের ক্রেতারা প্রায় ৩০০ মিলিয়ন ডলারের ক্রয়াদেশ বাতিল বা স্থগিত করেছে । ফলে এ সেক্টরে কর্মরত প্রায় ১০ লাখ শ্রমিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের জীবিকা অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। কাজেই যুক্তরাজ্য যদি তাদের ক্রেতাদের জন্য তহবিল গঠন করে সেক্ষেত্রে তা বাংলাদেশে পোশাক খাতে কর্মরত শ্রমিকদের পরিবারদের জন্য সহায়ক হবে।
করোনা পরবর্তী বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে কমনওয়েলথের কার্যকর ভূমিকা রাখার বিষয়ও তাদের আলোচনায় স্থান পায়। লর্ড আহমেদ করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রশংসা করেন। বৈশ্বিক করোনাবিষয়ক সমস্যা সমাধানে উভয় প্রতিমন্ত্রী বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে একত্রে কাজ করার বিষয়ে একমত পোষণ করেন।
এ সময় মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয় দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে মানবিকতার পরিচয় দিয়েছেন তার প্রশংসা করেন যুক্তরাজ্যের এ প্রতিমন্ত্রী। যুক্তরাজ্যকে জাতিসংঘে রোহিঙ্গা ইস্যুটির উপস্থাপক দেশ হিসেবে উল্লেখ করে লর্ড আহমেদ বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের ওপর সংঘটিত নৃশংস ঘটনার ন্যায়বিচার ও এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করতে যুক্তরাজ্যের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’
মিয়ানমারের গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের বিষয়ে আন্তর্জাতিক আদালতের সিদ্ধান্তের প্রতি আস্থাশীল হিসেবে যুক্তরাজ্যের প্রতিমন্ত্রী উল্লেখ করেন। উভয় প্রতিমন্ত্রী নিকট ভবিষ্যতে আবার দ্বিপাক্ষিক বিষয়ে আলোচনার বিষয়েও আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Leave a Reply