করোনায় ক্রেডিট কার্ড গ্রাহকদের বিশেষ ছাড়

করোনায় ক্রেডিট কার্ড গ্রাহকদের বিশেষ ছাড়

করোনাভাইরাসের কারণে ক্রেডিট কার্ড গ্রাহকদের বিশেষ ছাড় দিল বাংলাদেশ ব্যাংক। আগামী ৩১ মে পর্যন্ত ক্রেডিট কার্ডের গ্রাহকদের সব ধরনের জরিমানা মওকুফের জন্য বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সেই সঙ্গে গত ১৫ মার্চ থেকে যাদের বিল বকেয়া হয়েছে ও এর বিপরীতে জরিমানা আরোপ বা আদায় করা হয়েছে সেটিও ফেরতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ শনিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

সার্কুলারে বলা হয়, বিশ্বের অন্যান্য দেশসহ বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট কোভিড-১৯ রোগের বিস্তার ও সংক্রমণের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ব্যবসা-বাণিজ্যসহ অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড স্থবির হয়ে পড়েছে। ফলে জনসাধারণের আয়বর্ধনকারী কর্মকাণ্ডের ওপর নেতিবাচক প্রভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে। অন্যদিকে, করোনার সংক্রমণ রোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাথা নিশ্চিতে সাধারণ ছুটি, গণপরিবহন সীমিত রাখতে এবং জনসাধারণকে জরুরি প্রয়োজন ব্যতিত বাইরে যাওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য সরকার থেকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। এ প্রেক্ষিতে জরুরি ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সীমিত আকারে ব্যাংক চালু রাখা হয়েছে। তাই অনেক ক্ষেত্রেই ক্রেডিট কার্ড গ্রাহকদের পক্ষে প্রদেয় বিল নির্ধারিত সময়ে পরিশোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। এ প্রেক্ষিতে গ্রাহকদের আর্থিক সামর্থ্য ও চলমান অন্যান্য সীমাবদ্ধতার বিষয়টি বিবেচনায় বিলম্ব ফি বা জরিমানা মওকুফের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এক্ষেত্রে যেসব ক্রেডিট কার্ড গ্রাহকের বকেয়া বিল পরিশোধের শেষ সময় ১৫ মার্চ বা তার পরে, সেসব ক্ষেত্রে বিল নির্ধারিত সময়ে পরিশোধ করতে না পারলে কোনো ধরনের বিলম্ব ফি নেওয়া হবে না। আবার এই সময়ের মধ্যে কেউ বিলম্ব ফি প্রদান করলে, তা সংশ্লিষ্ট গ্রাহককে পরবর্তী সময়ে তার বিলের সঙ্গে সমন্বয় করে দিতে হবে। এ নির্দেশনা ১৫ মার্চ থেকে কার্যকর হবে ও ৩১ মে পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। এর ফলে যেসব গ্রাহকের গত ১৫ মার্চ থেকে বিল পরিশোধের সময় শুরু হয়েছে, তারা ৩১ মে পর্যন্ত বিনা জরিমানায় বিল দিতে পারবেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত ক্রেডিট কার্ডের গ্রাহক দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৫৬ হাজার ৪৪৮ জন।

Leave a Reply