বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৩৫০০ শিক্ষককে এগিয়ে আসার আহ্বান

বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৩৫০০ শিক্ষককে এগিয়ে আসার আহ্বান

করোনাভাইরাস উদ্ভুত পরিস্থিতিতে আর্থিক, সামাজিক, স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নে মানবিক সহযোগিতায় জন্য ৪৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১৩৫০০ জন শিক্ষককে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন। শিক্ষকদের এক কিংবা দুইদিনের বেতনের সমপরিমাণ অর্থ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সভাপতি ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল ও মহাসচিব ড. নিজামুল হক ভূঁইয়া স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাস বিশ্বজুড়ে মহামারীর রূপ নিয়েছে। ইতোমধ্যে ২০০টি দেশের জনগণ এই ভাইরাসে আক্রান্ত। বাংলাদেশও এর বাইরে নেই। এখানেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে কমিউনিটি পর্যায়ে এর প্রসারও ঘটেছে। এই প্রেক্ষাপটে স্বাস্থ্যসংক্রান্ত সতর্কতার অংশ হিসেবে জনসমাগম, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও অফিস-আদালত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপী এই ভাইরাসটি আরো ছড়িয়ে পড়ার আশংকা করছেন অনেকেই। ফলে, স্বাস্থ্যসেবায় অধিক আর্থিক বরাদ্দ যেমন প্রয়োজন হবে, তেমনি বৈশ্বিক অর্থনীতির মন্দার প্রভাবসহ আমাদের আর্থিক ও সামাজিকব্যবস্থা হুমকির মুখে পড়ার বিরুদ্ধেও আমাদের সজাগ থাকতে হবে। বর্তমানে দৈনিক খেটে-খাওয়া হতদরিদ্র শ্রেণি-পেশার মানুষের ওপর এর প্রভাব ইতোমধ্যে পড়তে আরম্ভ করেছে। ভবিষ্যতে এর ফল হবে সুদূরপ্রসারী। সরকার হতদরিদ্র, প্রান্তিকজনগোষ্ঠী ও খেটেখাওয়া মানুষের খাদ্যনিরাপত্তা প্রদানের লক্ষ্যে নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। অন্যান্য ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান থেকেও এগিয়ে আসার সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে। সমাজের অগ্রসর মানুষ হিসেবে এই চ্যালেঞ্জ থেকে উত্তরণের জন্য আমাদেরও জোরালো ভূমিকা নেয়ার আজ প্রয়োজন দেখা দিয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মানবিক সহায়তার অংশ হিসেবে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের পক্ষ থেকে সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ১ (এক) বা ২ (দুই) দিনের বেতনের সমপরিমাণ অর্থ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে প্রদান করার জন্য বিনীত আহ্বান জানাই। চারিদিকে যখন আমরা সবাই গৃহাভ্যন্তরে কাল কাটাচ্ছি, এ সময় এই মানবিক সহযোগিতার সঠিক প্রয়োগ ও যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণতহবিলে প্রদান করাই যুক্তিযুক্ত হবে বলে আমরা মনে করি।

দেশের সকল মানুষকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে বলা হয়, দেশের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ, সক্ষম ও ধনাঢ্য ব্যক্তিবর্গকে সর্বোচ্চ ত্যাগস্বীকার করে মানবিক সহযোগিতায় এগিয়ে আসার উদাত্ত আহ্বান জানাই। করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে স্বাস্থ্যবিধি তথা সামাজিক দূরত্ব, হোম কোয়ারেন্টাইন, হাঁচি-কাশি-সর্দি সংক্রান্ত শুদ্ধাচার ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার নির্ভুল দিকনির্দেশনা স্ব স্ব অবস্থান থেকে সাধারণ জনগোষ্ঠীর নিকট পৌঁছে দেওয়ার জন্য ৪৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১৩, ৫০০ জন শিক্ষকের কাছে আমাদের আহ্বান রইল। বৈশ্বিক বিপর্যয়কালে এই মানবিক সহযোগিতা প্রদানের মাধ্যমে আমরা সংবেদনশীলতার সঙ্গে একথাই প্রকাশ করতে চাই, বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের সঙ্গে শিক্ষকসমাজ আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে।

Leave a Reply