বিমানবন্দরে ডাক্তার নার্স স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ দেওয়ার নির্দেশ

বিমানবন্দরে ডাক্তার নার্স স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ দেওয়ার নির্দেশ

অসুস্থ যাত্রীদের জরুরি চিকিৎসা দিতে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরসহ দেশের সকল বিমানবন্দরে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ডাক্তার, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে বিমানবন্দরে অ্যাম্বুলেন্স, প্যারামেডিক সুবিধাসহ জরুরি চিকিৎসার সকল ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি খিজির আহমেদ চৌধুরীর হাইকোর্ট বেঞ্চ এক রায়ে এ নির্দেশ দেন। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অসুস্থ হয়ে মারা যাওয়া বাংলাদেশ ও নরওয়ের দ্বৈত নাগরিক মীর রফিকুল ইসলামের স্ত্রীর করা এক রিট আবেদনে এ রায় দেন হাইকোর্ট।

হাইকোর্ট গতবছর ৯ জানুয়ারি এ রায় দেন যা চলতি মাসে প্রকাশিত হয়েছে বলে আজ রবিবার জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবী ব্যারিস্টার এবিএম হামিদুল মিজবাহ।

মীর রফিকুল ইসলাম নামে নরওয়ে ও বাংলাদেশের দ্বৈত নাগরিক ২০১৭ সালের ২৭ অক্টোবর হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে স্ত্রীসহ নরওয়ে যাচ্ছিলেন। হঠাৎ তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এ অবস্থায় তার চিকিৎসার জন্য তার স্ত্রী আবেদন জানালে ডাক্তার বা অ্যাম্বুলেন্স না থাকায় সেবা দিতে অপারগতা প্রকাশ করে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ তাকে হাসপাতালে নিতে পরামর্শ দেয়। সেখানে প্রায় এক ঘণ্টা অপেক্ষা করার পর ট্যাক্সিতে করে তাকে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে।

এই ঘটনায় সংক্ষুব্ধ হয়ে এক কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে তার স্ত্রী সেলিনা বেগম ২০১৮ সালে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। এ রিট আবেদনে রিট আবেদনকারীকে কেন ৩০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। এই রুলের ওপর শুনানি শেষে ক্ষতিপূরণ বিষয়ে জারি করা রুল খারিজ করে রায় দেন। তবে আদালত দেশের সকল বিমানবন্দরে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ডাক্তার, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ, বিমানবন্দরে অ্যাম্বুলেন্স, প্যারামেডিক সুবিধাসহ জরুরী চিকিৎসার সকল ব্যবস্থা করতে নির্দেশ দেন।

Leave a Reply