সিএএ বিরোধিতায় আদালতে কেরালা সরকার, চাপে মমতা-রাহুলরা

সিএএ বিরোধিতায় আদালতে কেরালা সরকার, চাপে মমতা-রাহুলরা

ভারতের স‌ংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) সাংবিধানিক বৈধতাকে সে দেশের সুপ্রিম কোর্টে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছে কেরালা রাজ্যের বামপন্থী সরকার।

সিএএ বিরোধিতা করে সুপ্রিম কোর্টে এরই মধ্যে ৬০টিরও বেশি মামলা জমা পড়েছে। ভারতের হাইকোর্টেও মামলা হয়েছে বলে জানা গেছে। কিন্তু এই প্রথম কোনো রাজ্য সরকার ওই আইনের বিরোধিতা করতে সুপ্রিম কোর্টে গেল।

কেরালার বামপন্থী সরকারের এ ধরনের পদক্ষেপের ফলে কংগ্রেস ও তৃণমূল চাপে পড়ে গেছে। যদিও কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্ব থেকে তাদের মুখ্যমন্ত্রীরা সিএএ-র বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সরকারও সেই রাজ্যে সিএএ হতে দেবে না বলে জানিয়েছে।

কিন্তু সংবিধান অনুসারে প্রতিটি রাজ্য কেন্দ্রীয় আইন মানতে বাধ্য। এ ধরনের পরিস্থিতিতে অন্য রাজ্যও সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হবে কি না, সে ব্যাপারে প্রশ্ন উঠছে।

কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন বলেন, সংবিধানের মর্যাদা রক্ষায় বাকি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদেরও একই রকম পদক্ষেপ করতে অনুরোধ করছি। এর আগে এ বিষয়ে অন্য মুখ্যমন্ত্রীদের চিঠিও লিখেছেন তিনি।

এদিকে মমতা ব্যানার্জি থেকে শুরু করে রাহুল গান্ধী কিংবা প্রিয়াঙ্কা গান্ধীরাও কেবল রাস্তায় নেমে সিএএ বিরোধিতায় কথা বলছেন। এখন পর্যন্ত কার্যত কোনো পদক্ষেপ তারা নিচ্ছেন না। আদালতের দ্বারস্থও হননি।

ওদিকে কেরালায় সিএএ বিরোধী বিল পাস করিয়ে নিয়েছে সেখানকার বামপন্থী সরকার। এবার তারা আদালতের দ্বারস্থ হলো। সবমিলিয়ে এক ধরনের চাপে পড়ে গেছে তৃণমূল ও কংগ্রেস।

Leave a Reply