ইরানের ‘নতুন সোলাইমানি’ কায়ানি

ইরানের ‘নতুন সোলাইমানি’ কায়ানি

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের হামলায় নিহত হয়েছেন কুদস বাহিনীর দায়িত্ব থাকা কাসেম সোলাইমানি। তার মৃত্যুর পর বাহিনীটির দায়িত্ব নিয়েছেন জেনারেল এসমাইল কায়ানি। কেমন মানুষ, কেমন যোদ্ধা তিনি?

ডয়চে ভেলের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, ৬৩ বছর বয়সী এসমাইল কায়ানির জন্ম মাসাদ শহরে। ইরানের দ্বিতীয় জনবহুল শহর মাসাদ শিয়া মুসলমানদের গুরুত্বপূর্ণ তীর্থস্থান। ১৯৭৯ সালে ইরানের ইসলামিক রেভোল্যুশন গার্ড কর্পস (আইআরজিসি) গঠন করা হয়। পরের বছরই এই বাহিনীতে যোগ দেন কায়ানি। আর কাসেম সোলাইমানির মৃত্যুর পর বাহিনীটির প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় জেনারেল কাসেম সোলাইমানি নিহত হওয়ার পর ইরানের কুদস বাহিনীর দায়িত্ব নেন জেনারেল এসমাইল কায়ানি। জানা গেছে, কুদস বাহিনীর প্রধান হিসেবে সোলাইমানি ইরানের পশ্চিমের দেশগুলোতে কাজ করতেন, কায়ানি ছিলেন উত্তরাঞ্চলের দায়িত্বে। সেখানে মাদক পাচার রোধে ভূমিকা রেখেছেন। এছাড়া আফগানিস্তানে তালেবানবিরোধী যুদ্ধে নর্থ অ্যালায়েন্সকে সহায়তা করেছেন তিনি।

সোলাইমানির মতো তারও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল ১৯৮০ থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত চলা ইরান-ইরাক যুদ্ধে। সেই যুদ্ধের পরই কুদস বাহিনীতে যোগ দিয়ে আফগানিস্তান ও তুর্কমেনিস্তান সংলগ্ন সীমান্তে কাজ শুরু করেন।

জেনারেল সোলাইমানির মৃত্যুর পর কুদস বাহিনীর দায়িত্ব নিয়েই এসমাইল কায়ানি বলেছেন, সর্বশক্তিমান আল্লাহ চান আমরা শহিদ সোলাইমানির হয়ে প্রতিশোধ নিই। নিশ্চিতভাবেই তা করা হবে।

Leave a Reply