ইসরায়েলে ৫ হাজার বছরের প্রাচীন নগরীর সন্ধান

ইসরায়েলে ৫ হাজার বছরের প্রাচীন নগরীর সন্ধান

ইসরায়েলে পাঁচ হাজার বছরের পুরোনো একটি নগরীর ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাওয়া গেছে। যা ওই অঞ্চলে আবিষ্কৃত সবচেয়ে প্রাচীন এবং সবচেয়ে বড় নগরী বলে ধারণা করা হচ্ছে।
নগরীটিতে প্রায় ছয় হাজার মানুষ বাস করত। সেখানে পরিকল্পিত সড়ক, নগর উপকণ্ঠ, দুর্গ এবং ধর্মীয় মন্দিরের চিহ্ন খুঁজে পাওয়া গেছে বলে জানায় বিবিসি। যদিও প্রথমে নগরীটি সাত হাজার বছরের পুরাতন বলে ধারণা করা হয়েছিল।

ইসরায়েলের পত্নতাত্ত্বিকরা মাটি খুঁড়ে নগরীটির সন্ধান পেয়েছেন। তারা বলেন, ওই সময়ে এই অঞ্চল কেমন ছিল তা সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পেতে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার।
খননকাজ পরিচালকরা এক বিবৃতিতে বলেছেন,“এটি ব্রোঞ্জ যুগের প্রারম্ভে আমাদের এ অঞ্চলের নিউ ইয়র্ক ছিল; সর্বজনীন এবং পরিকল্পিত নগরী যেখানে হাজারো মানুষ বসবাস করত।”

“কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এবং ইসরায়েলে নগরায়নের কারণে এ নগরীর যে নাটকীয় পরিবর্তন হয়েছে সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই।”

নগরীটি প্রায় ১৬১ একর জায়গাজুড়ে বিস্তৃত। এর আগে আবিস্কৃত এধরনের নগরীর তুলনায় এটি আয়তনে প্রায় দ্বিগুণ।
নগরীর ধ্বংসাবশেষ থেকে প্রায় ৪০ লাখ নানা ধরনের বস্তুখণ্ড উদ্ধার করা হয়েছে। মানুষ ও প্রাণীর মূর্তি, তৈজসপত্রের টুকরা ও নানা যন্ত্রপাতি, যেগুলোর কিছু কিছু মিশর থেকেও এসেছে।

সেখানে প্রাণী দেহের পোড়া হাড় পাওয়া গেছে। যা থেকে ধরে নেওয়া যায় তাদের কারো উদ্দেশে উৎসর্গ করা হয়েছে। সেখানে সুপেয় পানির দুইটি ঝর্ণা থাকার চিহ্নও খুঁজে পেয়েছেন প্রত্নতাত্ত্বিকরা।
প্রাচীন নগরিটি যেখানে খুঁজে পাওয়া যায় সেখানে প্রায় আড়াই বছর আগে খনন কাজ শুরু হয়েছিল।

ওই এলাকায় নতুন একটি সড়ক নির্মাণ কাজ শুরু হলে প্রথম প্রাচীন নগরীটির চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যায়। পরে সড়ক নির্মাণ বন্ধ রেখে প্রত্নতাত্ত্বিকরা সেখানে খনন শুরু করেন।

Leave a Reply