ভূত ভয় পান না ‘ভূতপরী’ জয়া আহসান

ভূত ভয় পান না ‘ভূতপরী’ জয়া আহসান

অভিনয়ের দক্ষতা দিয়ে দুই বাংলার দর্শকদের মধ্যে মুগ্ধতা ছড়িয়ে যাচ্ছেন জয়া আহসান। একেরপর এক ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে আভির্ভাব ঘটছে তার। সম্প্রতি কলকাতায় ‘ভূতপরী’ নামের নতুন একটি ছবিতে শুটিং এর কাজ শুরু করছেন জয়া। ছবিটিতে দর্শকরা তাকে ভূত এবং পরী দুই রুপেই দেখতে পারবেন।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভূতপরী সিনেমার শুটিংয়ের একটি ছবি পোস্ট করেছেন জয়। ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘লালমাটি, কালিকাপুর গ্রাম ও ভূত পরীর বনলতা’।
ভারতীয় গণমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিন এ সংক্রান্ত এক প্রতিবেদনে জানায়, বোলপুর থেকে ৩২ কিলোমিটার দূরের একটি গ্রাম কালিকাপুর। গ্রামের মধ্যে বিশাল বাড়ি। সাড়ে তিন শ বছর আগে জমিদার পরমানন্দ রায় বাড়িটি তৈরি করেন। জমিদারবাড়ির সেই জৌলুশ আর নেই। চুন–সুরকি খসে পড়েছে। উঁকি মারছে ইট–কাঠ–পাথর। এই বাড়িতেই ‘ভূত পরী’ ছবির শুটিং হচ্ছে।
দিনের আলোয় সাদা শাড়িতে জয়া বসে আছেন এক গ্রামের লাল মাটি ছুঁয়ে। শুটিং করতে গিয়ে এমন নিবিড় গ্রামে গিয়ে প্রকৃতির প্রেমে পড়ে গেছেন জয়া। শুটিংয়ের জন্য বেশকিছুদিন সেখানেই থাকতে হচ্ছে। পাখির কিচির মিচিরে ঘুম ভাঙছে, চোখ মেললেই দেখতে পাচ্ছেন সাঁওতাল রমনীদের হেঁটে যাওয়া।
ছবিটিতে জয়া আহসানের চরিত্রের নাম বনলতা। ছবিটি যেহেতু ভুতের তাই জয়া আহসান ভূত বিশ্বাস করেন কিনা জানতে চাইলে বললেন, আলোয় যেমন জীবজন্তু, মানুষ, গাছপালা থাকে; তেমনি অন্ধকারেও এমন কিছু থাকে, যারা কাউকে বিরক্ত করে না। মানুষের সঙ্গে সহাবস্থান করে। এটা বিশ্বাস করতে কোনো অসুবিধা নেই।’ আর ভয় নিয়ে বললেন, ‘ভয় ব্যাপারটা কেটে গেছে। আগে সাপখোপে ভয় পেতাম, এখন তা–ও পাই না।
ছবিটির গল্পে দেখা যাবে, ১৯৪৭ সালে এক মহিলার মৃত্যু হয়েছিল। কিন্তু ঘটনাক্রমে ২০১৯-এ এসে একটি ছোট্ট ছেলের সঙ্গে তার কথা হয়। ওই ছেলেটির সাহায্যেই নিজের মৃত্যুর কথা জানতে পারে সেই ভূতপরী। তবে এই মৃত্যুর মধ্যেই রয়েছে অন্য রহস্য। কারণ, তার মৃত্যু স্বাভাবিক ছিল না, তাকে খুন করা হয়েছিল। পরে সেই ছোট ছেলেটি ভূতপরীকে তার খুনির কাছে পৌঁছে দেবে। এমনই রহস্য ভরা গল্প নিয়ে এগিয়ে যাবে চিত্রনাট্য।
ছবিটি পরিচালনা করছেন সৌকর্য ঘোষাল এবং প্রযোজনা করছে সুরিন্দর ফিল্মস। এতে জয়া ছাড়াও আরও অভিনয় করবেন ঋত্বিক চক্রবর্তী, বিশ্বনাথ মুখোপাধ্যায়, সুদীপা চক্রবর্তী, শান্তিলাল মুখোপাধ্যায় প্রমুখ।

Leave a Reply