জামিন পেলেন শ্বেতার দ্বিতীয় স্বামী অভিনব

জামিন পেলেন শ্বেতার দ্বিতীয় স্বামী অভিনব

দ্বিতীয় স্বামী অভিনব কোহলির বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে নির্যাতনের অভিযোগ করেছেন ‘কসৌটি জিন্দেগি কে’ সিরিয়ালের ‘প্রেরণা’ শ্বেতা তিওয়ারি। তিনি অভিযোগ করে বলেছেন, রাতে মদ খেয়ে মাতাল অবস্থায় বাসায় ফিরে শ্বেতার প্রথম পক্ষের মেয়ে পলক তিওয়ারিকে মারধর করেছেন এবং অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেছেন অভিনব কোহলি। তাঁর বিরুদ্ধে স্ত্রী নির্যাতনসহ ভারতীয় দণ্ডবিধির সাতটি ধারায় মামলা করা হয়েছে। এরপর মুম্বাইয়ের পূর্ব কান্দিভালির সমতা নগর পুলিশ স্টেশনে তাঁকে ডেকে আনা হয়। টানা চার ঘণ্টা তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। অভিনব তাঁর বিরুদ্ধে শ্বেতার করা প্রায় সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। এদিকে গতকাল বুধবার ১৫ হাজার রুপি জামানতের বিনিময়ে থানা থেকেই জামিন পেয়েছেন অভিনব কোহলি।

সমতা নগর পুলিশ স্টেশন থেকে সংবাদমাধ্যমকে জানানো হয়েছে, এটি পারিবারিক সমস্যা। শ্বেতা তিওয়ারির অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত হচ্ছে। তদন্ত শেষ হওয়ার আগে এ ব্যাপারে পুলিশ কোনো মন্তব্য করবে না।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পলক লিখেছেন, মায়ের অনুপস্থিতিতে সৎবাবা অভিনব কোহলি তাঁকে বিভিন্ন ধরনের অশ্লীল কথা বলতেন। এসব কথা বাবার কাছ থেকে শুনবে, এমনটা কখনোই আশা করেননি পলক। আর নিজের মেয়েকে অভিনব কোহলির অশ্লীল কথা নিয়ে শ্বেতা তিওয়ারির সাবেক স্বামী রাজা চৌধুরী বলেন, অভিনবের কীর্তিকলাপ অনেক দিন থেকে তিনি খেয়াল করছেন। তাঁকে হাতের কাছে পেলে তিনি উচিত শিক্ষা দেবেন।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে অভিনব তাঁর বিরুদ্ধে শ্বেতার করা প্রায় সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তবে তিনি বলেছেন, সেদিন রাতে তিনি মদ্যপান করে বাসায় ফেরেন। ওই অবস্থায় শ্বেতার সঙ্গে তাঁর কথা-কাটাকাটি হয়। পলকও তাঁর সঙ্গে উচ্চ স্বরে কথা বলেন। তখন তিনি নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে পলককে থাপ্পড় দিয়েছেন।

অভিনব কোহলির মা পুনম কোহলি ইন্ডিয়া টুডেকে বলেছেন, দুই বছর ধরে শ্বেতা আর অভিনবর সম্পর্ক ভালো যাচ্ছে না। শ্বেতার সঙ্গে অভিনব বিবাহবিচ্ছেদ ঘটাতে চাচ্ছেন। আর এ কারণেই তাঁর ছেলেকে শ্বেতা ফাঁসাতে চাচ্ছেন।

ভোজপুরী চলচ্চিত্রের তারকা রাজা চৌধুরীকে ১৯৯৮ সালে বিয়ে করেন শ্বেতা তিওয়ারি। ২০০৭ সাল থেকে তাঁরা আলাদা থাকতে শুরু করেন। রাজা চৌধুরীর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি শ্বেতাকে মারধর করতেন। তাঁর আচরণে অতিষ্ঠ হয়ে প্রতিবেশীরা মুম্বাই পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন। এরপর পুলিশ রাজা চৌধুরীকে মুম্বাই ছাড়ার নির্দেশ দেয়। তখন রাজা চৌধুরীর বিরুদ্ধে শারীরিক নির্যাতনের মামলাও করেছিলেন শ্বেতা। ২০১২ সালে তাঁদের বিবাহবিচ্ছেদ হয়। ওই সময় থেকে মেয়ে পলককে নিজের কাছেই রেখেছেন শ্বেতা।

২০১৩ সালে অভিনেতা অভিনব কোহলিকে বিয়ে করেন শ্বেতা তিওয়ারি। ‘বিগ বস ফোর’-এর সেটেই তাঁদের পরিচয়। বিয়ের আগে তাঁরা তিন বছর প্রেম করেছেন। ২০১৬ সালে আবার মা হন শ্বেতা। তাঁর ছেলের নাম রেয়ানশ।

Leave a Reply