নেশন্স লিগের দলগুলোর অবস্থান

নেশন্স লিগের দলগুলোর অবস্থান

প্রথমবারের মত আয়োজিত উয়েফা নেশন্স লিগের প্রাথমিক পর্বের খেলা প্রায় শেষের পথে। আগামী মাসে অনুষ্ঠিতব্য গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচগুলোতে সব দলই চেষ্টা করবে ফাইনালে খেলতে না পারুক, অন্তত রেলিগেশন এড়িয়ে নিজেদের শীর্ষ পর্যায়ের প্রতিদ্বন্দ্বীতায় টিকিয়ে রাখা।
বিশেষ করে ইউরো ২০২০’র ড্র কিংবা বাছাইপর্বকে সামনে রেখে কিছু কিছু দল এই নেশন্স লিগকে বেশ গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করছে। আগামী মাসে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচগুলোতে মাঠে নামার আগে বিভিন্ন দলের অবস্থান এখানে তুলে ধরা হলো।

লিগ’এ (গ্রুপ ১) : ফ্রান্স, নেদারল্যান্ড, জার্মানী
স্ট্যান্ডিং : দুই ম্যাচে চার পয়েন্ট নিয়ে প্রথম স্থানে রয়েছে ফ্রান্স। তাদের থেকে এক পয়েন্ট পিছিয়ে নেদারল্যান্ড দ্বিতীয় ও তিন পয়েন্ট পিছিয়ে তলানিতে রয়েছে জার্মানী। মঙ্গলবার ফ্রান্সের কাছে জার্মানী পরাজিত হবার পরও তারা নিশ্চিতভাবেই দ্বিতীয় স্থানের বেশী অর্জন করতে পারবে না। শেষ ম্যাচে নেদারল্যান্ডকে পরাজিত করতে না পারলে রেলিগেশনে যাবে সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন জার্মানী।
বাকি ম্যাচের সূচী : নেদারল্যান্ড বনাম ফ্রান্স (১৬ নভেম্বর), জার্মানী বনাম নেদারল্যান্ড (১৯ নভেম্বর)।

গ্রুপ-২ : বেলজিয়াম, সুইজারল্যান্ড, আইসল্যান্ড
স্ট্যান্ডিং : বেলজিয়াম ও সুইজারল্যান্ডের সংগ্রহে আছে সমান ৬ পয়েন্ট। এক ম্যাচ হাতে রেখে রবার্তো মার্টিনেজের বেলজিয়াম হেড-টু-হেড রেকর্ডে এগিয়ে টেবিলের শীর্ষে রয়েছে। ফাইনালে খেলতে হলে আগামী মাসে সুইজারল্যান্ডকে অবশ্যই বেলজিয়ামের বিপক্ষে দুই গোলের ব্যবধানে জিততে হবে। তিন ম্যাচে কোন পয়েন্ট সংগ্রহ না করা আইসল্যান্ড ইতোমধ্যেই রেলিগেটেড হয়ে গেছে।
বাকি ম্যাচের সূচী : বেলজিয়াম বনাম আইসল্যান্ড (১৫ নভেম্বর), সুইজারল্যান্ড বনাম বেলজিয়াম (১৮ নভেম্বর)।

গ্রুপ-৩ : পর্তুগাল, ইতালি, পোল্যান্ড
স্ট্যান্ডিং : দুই ম্যাচে পূর্ণ ৬ পয়েন্ট নিয়ে ইতালির থেকে দুই পয়েন্ট এগিয়ে শীর্ষে রয়েছে পর্তুগাল। শেষ ম্যাচে আজ্জুরিদের বিপক্ষে অন্তত ড্র করতে পারলেই তারা ফাইনালে পৌঁছে যাবে। অন্যদিকে ইতালিকে অবশ্য জিততে হবে ও পোল্যান্ডের সাথে পর্তুগালের না জেতার আশায় থাকতে হবে। ইতোমধ্যেই এই গ্রুপ থেকে রেলিগেটেড হয়ে নেমে গেছে পোল্যান্ড।
বাকি ম্যাচের সূচী : ইতালি বনাম পর্তুগাল (১৭ নভেম্বর), পর্তুগাল বনাম পোল্যান্ড (২০ নভেম্বর)।

গ্রুপ-৪ : স্পেন, ইংল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া
স্ট্যান্ডিং : ইংল্যান্ডের থেকে দুই পয়েন্ট এগিয়ে গ্রুপের শীর্ষে রয়েছে স্পেন। ক্রোয়েশিয়াকে শেষ ম্যাচে হারাতে পারলেই স্প্যানিশরা ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জণ করবে। আর তা না হলে ক্রোয়েশিয়াকে হারাতে পারলে ইংল্যান্ড চলে যাবে ফাইনালে।
বাকি ম্যাচের সূচী : ক্রোয়েশিয়া বনাম স্পেন (১৫ নভেম্বর), ইংল্যান্ড বনাম ক্রোয়েশিয়া (১৮ নভেম্বর)।

পরবর্তী লিগে উন্নীত হবার দৌড়ে যে দলগুলো এগিয়ে :
লিগ-বি : নিজ নিজ গ্রুপের শীর্ষ স্থান পেতে হলে ইউক্রেন ও রাশিয়ার শুধুমাত্র ড্র করলেই চলবে। তবে আগামী মাসে সুইডেন যদি তুরষ্ককে পরাজিত করতে না পারে তবেও এই দুটি দল পরের লিগে উন্নীত হবে। শীর্ষ স্থান থেকে বসনিয়া-হার্জেগোভেনিয়ায়ও এক পয়েন্ট দুরে রয়েছে। এছাড়াও অস্ট্রিয়া, চেক রিপাবলিক, ডেনমার্ক, আয়ারল্যান্ড, স্লোভাকিয়া, সুইডেন ও ওয়েলসেরও লিগ-এ’তে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে।
লিগ-সি : পরের লিগে যাবার ক্ষেত্রে ইসরাঈল ও ফিনল্যান্ডের মাত্র এক পয়েন্ট প্রয়োজন রয়েছে। নরওয়েকে হারাতে পারলে বুলগেরিয়ারও যাওয়া নিশ্চিত হবে। তবে সেক্ষেত্রে স্লোভেনিয়াকে সাইপ্রাসের সাথে জিততে হবে। আগামী মাসে শেষ ম্যাচে মন্টেনেগ্রোকে পরাজিত করতে পারলে ও লিথুনিয়ার সাথে রুমানিয়া পরাজিত হলে সার্বিয়ার শীর্ষস্থান নিশ্চিত হবে। তবে এক্ষেত্রে লিগ-বি’তে উন্নীত হতে স্কটল্যান্ড, আলবেনিয়া, গ্রীস, নরওয়ে, সাইপ্রাস ও মন্টেনেগ্রোরও সম্ভাবনা রয়েছে।
লিগ-ডি : জর্জিয়ার এখানে সম্ভাবনা বেশী। এদিকে বেলারুসকে হারাতে পারলে লুক্সেমবার্গ চলে যাবে পরের লিগে। একইভাবে কসভো মাল্টাকে হারাতে পারলে তাদেরও সম্ভাবনা রয়েছে। তবে সেক্ষেত্রে ফেরো আইল্যান্ডকে জয়ী হতে হবে আজারবাইজানের সাথে। আর্মেনিয়াকে হারালেও মেসিডোনিয়াও প্রতিযোগিতায় টিকে থাকবে। এই লিগ থেকে সম্ভাবনাময় দলগুলো হলো আনডোরা, কাজাকস্তান, লাটভিয়া, বেলারুস, মোলডোভা, আজারবাইজান, ফারো আইল্যান্ড, লিচেনস্টেইন, আর্মেনিয়া ও জিব্রালটার।

রেলিগেশনের সাথে যারা লড়াই করছে :
লিগ-এ : আইসল্যান্ড ও পোল্যান্ড ইতোমধ্যেই রেলিগেটেড হয়ে লিগ-বি’তে নেমে গেছে। আরেকটি করে ম্যাচ জিততে না পারলে জার্মানী ও ক্রোয়েশিয়াও নেমে যাবে। ফ্রান্স, নেদারল্যান্ড ও ইংল্যান্ডেরও রেলিগেশনের সম্ভাবনা রয়েছে।
লিগ-বি : আগামী মাসে তুরষ্ককে হারাতে না পারলে সুইডেন নীচে নেমে যাবে। বসনিয়া-হার্জেগোভেনিয়ার বিপক্ষে অস্ট্রিয়া অন্তত এক পয়েন্ট পেলেই নর্দান আয়ারল্যান্ড নেমে যাবে। এছাড়া এই লিগ থেকে রেলিগেশনের খরায় থাকা দলগুলো হলো ইউক্রেন, চেক রিপাবলিক, স্লোভাকিয়া, তুরষ্ক, অস্ট্রিয়া, ডেনমার্ক, ওয়েলস ও আয়ারল্যান্ড।

লিগ-সি : হাঙ্গেরির সাথে পরাজিত হলেও নীচে নেমে যাবে এস্তোনিয়া। অন্যদিকে সাইপ্রাসের কাছে হারলে স্লোভেনিয়ায় নেমে যাবে। বুলগেরিয়ার বিপক্ষে নরওয়েকে হার এড়াতে হবে। রেলিগেশন এড়াতে লিথুনিয়ার প্রয়োজন ৬ পয়েন্ট ও রুমানিয়ার বিপক্ষে মন্টেনেগ্রোর জয়। এই লিগ থেকে নীচে নামার সম্ভাব্য দলগুলো হলো ইসরাঈল, আলবেনিয়া, গ্রীস, হাঙ্গেরী, নরওয়ে, সাইপ্রাস ও রুমানিয়া।

লিগ-এ থেকে চার গ্রুপে চার শীর্ষ দল আগামী ৩ ডিসেম্বর নেশন্স লিগের ফাইনাল ড্রয়ের জন্য যোগ্যতা লাভ করবে। একইসাথে বাছাইপর্বের বাঁধা পেরুতে না পারলেও তারা ২০২০ ইউরোর প্লে-অফে সরাসরি খেলার সুযোগ পাবে।
এছাড়া লিগ-বি, লিগ-সি ও লিগ-ডি এর শীর্ষ দলগুলো আগামী নেশন্স লিগ টুর্নামেন্টের জন্য নিজেদের জায়গা উন্নীত করবে। একইসাথে লিগ-এ’র মত বাছাইপর্বের বাঁধা পেরুতে না পারলেও তারা ২০২০ ইউরোর প্লে-অফে সরাসরি খেলার সুযোগ পাবে। লিগ-এ, বি ও সি থেকে রেলিগেটেড দলগুলো আগামী নেশন্স লিগে নীচের লিগগুলোতে খেলবে। প্রতিটি দলের সর্বশেষ পজিশন ইউরো ২০২০ এর বাছাইপর্বের ড্রয়ের জন্য বিবেচিত হবে। আগামী ২ ডিসেম্বওরইউরো ২০২০ বাছাইপর্বের ড্র অনুষ্ঠিত হবে।

Leave a Reply