টাইগারদের শেষ ভাগ্য পরীক্ষা

টাইগারদের শেষ ভাগ্য পরীক্ষা

‘ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি’- অবস্থা এখন পুরো বাংলাদেশ দলের। ত্রিদেশীয় সিরিজের শুরুতে বাংলাদেশের সূচনাটা যেভাবে শুরু হয়েছিল, সে ধারাবাহিকতা এক ফুৎকারে যেন উড়ে গিয়ে কোন দূর দিগন্তে মিলিয়ে গেছে। যে কারণে, সাফল্য খুঁজেই পাচ্ছে না টিম বাংলাদেশ। বরং, শ্রীলঙ্কার কাছে বিধ্বস্ত হতে হতে এখন মনোবলই ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়েছে টাইগার ক্রিকেটারদের।

ত্রিদেশীয় সিরিজে হেরেছে, টেস্ট সিরিজে হেরেছে, টি-টোয়েন্টির প্রথম ম্যাচে নিজেদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান (১৯৩) করার পর উল্টো শ্রীলঙ্কা নিজেদের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় রান চেজের রেকর্ড গড়ে জিতে গেছে ২০ বল হাতে রেখেই। এতটা বিধ্বস্ত হওয়া একটি দলকে মানসিকভাবে চাঙা করে আবার মাঠে নামানো খুবই কঠিন একটি কাজ। অথচ, সে কাজটাই করতে হবে ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ভাগ্যটা খারাপই বলতে হবে। বিপিএলে দুর্দান্ত নেতৃত্ব দিয়ে থাকেন। এটা এখন সর্বজনবিধিত। খুব ঠান্ডা মাথার অধিকারী। এ কারণে, সব পরিস্থিতি খুব ঠান্ডা মাথায় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ সামাল দিতে পারবেন বলেই অনেকে মনে করেন; সে কারণে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে রিয়াদকে নেতৃত্বে দেখে অনেকেই আস্বস্ত হয়েছিলেন।

কিন্তু রিয়াদ এভাবে নেতৃত্ব নিতে প্রস্তুত ছিলেন না। সেরা তারকা এবং অধিনায়ক সাকিব আল হাসান না থাকা মানে, দলের একটা দিক অন্ধকার। টেস্ট সিরিজে সেটা হাড়ে হাড়ে টের পাওয়া গেছে। টি-টোয়েন্টিতেও তার থাকা ছিল অনেকটাই নিশ্চিত; কিন্তু দুর্ভাগ্য বিলম্বিত হলে কার কী করার থাকে! সাকিব আল হাসান খেলতে পারছেন না টি-টোয়েন্টি সিরিজেও। সুতরাং, দায়িত্বের বোঝা বর্তালো আবারও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের কাঁধে। বেচারা এখাওন ব্যর্থ এক সেনাপতি।

প্রথম টি-টোয়েন্টিতে মাঠে নামার আগে ইনজুরিতে দলের আরও দুই সেরা তারকা মুশফিকুর রহীম এবং তামিম ইকবাল। মুশফিক কোনোমতে খেলতে পারলেও তামিমকে পাওয়া যায়নি। তবুও ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় ১৯৩ রান উঠলো। নিজেকের টি-টোয়েন্টি ইতিহাসে যা সর্বোচ্চ সংগ্রহ। আশায় বুক বেধেছিল সবাই, কারণ টি-টোয়েন্টিতে শ্রীলঙ্কার সর্বোচ্চ রান তাড়া করার রেকর্ড ১৭৪। ১৯৪ করতে হলে আরও ২০ রান বেশি করতে হবে। সুতরাং, যত ভালোই খেলুক, কাজটা খুবই কঠিন।

কিন্তু বাংলাদেশের ধারহীন, নখ-দন্তহীন বোলিংয়ের সামনে ১৯৩ রান কিছুই না। স্রেফ উড়ে গেলো। ২০ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে নোঙর ফেলে শ্রীলঙ্কা। আর যাই হোক, এ সিরিজেও যে লঙ্কানরা হারছে না- এটা তো নিশ্চিত হয়ে গেছে। কোনো সিরিজ যে বাংলাদেশও জিততে পারছে না সেটাও নিশ্চিত হয়ে গেলো।

এখন কেবল বাংলাদেশের সামনে সম্মান বাঁচানোর লড়াই। অন্তত টি-টোয়েন্টি সিরিজটা না হারা। গত বছর একই সময়ে শ্রীলঙ্কায় গিয়ে গলে প্রথম টেস্টে হারলেও কলম্বোয় দ্বিতীয় টেস্ট জিতে এনেছিল সিরিজে সমতা। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের একটি ভেসে গিয়েছিল বৃষ্টিতে। বাকি দুটির একটি বাংলাদেশ, অন্যটি শ্রীলঙ্কা। এটায়ও সমতা। শেষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের দুই ম্যাচেও একটি করে জিতলো দুই দল। এখানেও ছিল সমতা।

কিন্তু এক বছর পর বাংলাদেশ সফরে এসে ত্রিদেশীয় সিরিজ জিতলো শ্রীলঙ্কা। টেস্ট সিরিজ জিতলো শ্রীলঙ্কা। এবার টি-টোয়েন্টি সিরিজও জয়ের পথে তারা। বাংলাদেশ কী পারবে, লঙ্কানদের এ জয়ের পথে বাধ সাধতে! আগামী মাসেই শ্রীলঙ্কায় নিদাহাস ট্রফি। তিনজাতি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট। স্বাগতিক লঙ্কানরা ছাড়াও এই টুর্নামেন্টে খেলবে বাংলাদেশ এবং ভারত।

বাংলাদেশের এ সিরিজ জিতে লঙ্কানদের লক্ষ্য নিজেদের দেশে নিহাদাস ট্রফিতে মনোবল চাঙ্গা করে মাঠে নামা। বাংলাদেশেরও লক্ষ্য, অন্তত শেষ ম্যাচটা জিতে মনোবাল আরো চাঙ্গা করা। যদিও কাজটা বেশ কঠিন বলেই মানছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। সিলেটে অনুষ্ঠিতব্য এ ম্যাচের আগেরদিন সংবাদ সম্মেলনে এসে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলেছেন, ‘শেষ ম্যাচ জিততে পারলে শ্রীলঙ্কায় টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টের জন্য আমাদের প্রস্তুতিটা ভালো হতো। ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে সেখানে যেতে পারতাম।’

কিন্তু কিভাবে। দলের মানসিক যে অবস্থা, তাতে লঙ্কানদের বিপক্ষে জয় কী সম্ভব? জবাবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলেন, ‘আমাদের আগে মানসিকভাবে চাঙা হতে হবে। এ জন্য দলের মানসিকতায় পরিবর্তন আনা খুব জরুরি। সেটা না হলে, ম্যাচে ইতিবাচকও থাকা যাবে না।’

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের মতে এ ম্যাচটা বাংলাদেশের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কী কী কারণে সেটা স্পষ্ট করে না জানালেও তিনি বলেন, ‘অনেক কারণেই কালকের ম্যাচ আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ।’

একাদশে কোনো পরিবর্তন আসবে কি না? এ বিষয়ে স্পষ্ট কিছু জানাননি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তিনি শুধু ইঙ্গিত দিয়েছেন, ‘একাদশে কিছু পরিবর্তন আসতে পারে।’ তবে আজ পর্যন্তও উইকেট দেখা হয়নি তার। এ কারণে কেমন একাদশ হবে- সেটা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না। তবে রিয়াদের জানা আছে, এ উইকেটে খুব রান হয়। সুতরাং, উইকেট দেখেই একাদশ ঠিক করা হবে বলে জানান তিনি।

Leave a Reply