পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি খেই ফেলেছে : তথ্যমন্ত্রী

পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি খেই ফেলেছে : তথ্যমন্ত্রী

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘পদ্মা সেতু হওয়ায় সারাদেশের মানুষ উল্লসিত। তবে বিএনপিসহ পদ্মা সেতু নিয়ে যারা ষড়যন্ত্র করেছে, দেশের মানুষ যখন তাদের ধিক্কার দিচ্ছে, তখন দলটির নেতারা খেই হারিয়ে উল্টাপাল্টা বক্তব্য দিচ্ছেন।’

শনিবার (২ জুলাই) দুপুরে চট্টগ্রাম নগরীর নিজ বাসায় প্রেস ব্রিফিংকালে উপস্থিত সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। এর আগে রাজধানীর বাংলা অ্যাকাডেমিতে ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টার (বিজেসি) আয়োজিত তৃতীয় সম্প্রচার সম্মেলনে চট্টগ্রাম থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। ঢাকা প্রান্তে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মকবুল হোসেন।

সরকার পদ্মা সেতু নিয়ে সংসদে গান করছে, এটার পরিবর্তে বন্যাদুর্গতদের সহায়তায় যেন আওয়ামী লীগ ঝাঁপিয়ে পড়ে—বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদের এই বক্তব্যের বিষয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর রিজভী সাহেব কয়েকদিন নিখোঁজ ছিলেন। হঠাৎ বের হয়ে তিনি এখন নানা ধরনের কথা বলছেন। বন্যার পর সেখানে বিএনপির কেউ যায়নি এবং বিএনপি বলেছে, ত্রাণ দেওয়া তাদের দায়িত্ব-কর্তব্য নয়। আমরা যখন বিরোধী দলে ছিলাম, তখন বন্যা, জলোচ্ছ্বাসসহ বিভিন্ন দুর্যোগ-দুর্বিপাকে আওয়ামী লীগ দুর্গতদের পাশে দাঁড়িয়েছে। আমাদের নেত্রী ছুটে গেছেন দুর্গতদের পাশে। এবার তারা কিন্তু যায়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘সংসদে মমতাজ বেগম যখন বক্তব্য শেষ করতে যাচ্ছিলেন, তখন বিএনপির সংসদীয় দলের নেতা হারুনুর রশীদ আরেকটি গান গাওয়ার অনুরোধ জানিয়েছিলেন। তার অনুরোধে মমতাজ বেগম আরেকটি গান গেয়েছিলেন। সেটা মনে হয় রিজভী সাহেব জানেন না।’

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘বন্যা হওয়ার পর আমাদের সরকার ও দল সর্বাগ্রে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। দল ও সরকারের পক্ষ থেকে সব ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বন্যার পানিতে ডুবে এবং সাপের কামড়ে কয়েকজন মারা গেছে সেটা সত্য। কিন্তু অনাহারে কোনও মানুষ মারা যায়নি।’

বাংলাদেশ শীর্ষ খবর