গবেষকদের রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের মূল্য খুঁজে বের করার আহ্বান মন্ত্রীর

গবেষকদের রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের মূল্য খুঁজে বের করার আহ্বান মন্ত্রীর

সামাজিক-রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব, একে অন্যের সঙ্গে খোঁচাখুঁচির আর্থিক মূল্য খুঁজে বের করার জন্য গবেষকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

তিনি বলেছেন, সমাজে নানা ধরনের পারস্পারিক দ্বন্দ্ব, খোঁচাখুঁচি রয়েছে। নিশ্চই তার আর্থিক ক্ষতিও আছে। এসময় তিনি গবেষকদের প্রতি এ সবের আর্থিক মূল্য নির্ধারণের আহ্বান জানান।

মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারি) পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই) আয়োজিত ‘করোনা পরবর্তী সময়ে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার এবং ভবিষ্যত করণীয়’ শীর্ষক এক ওয়েবনিয়ারে তিনি এ আহ্বান জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘এখানে অনেক পণ্ডিত, অনেক জ্ঞানী মানুষ আছেন। আপনারা অনেক কিছু নিয়ে গবেষণা করেন। আমি আপনাদের আহ্বান জানাবো সামাজিক রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব, একে অন্যের সঙ্গে খোঁচাখুঁচির আর্থিক মূল্য কত তা খুঁজে বের করেন। নিশ্চই তার আর্থিক ক্ষতি আছে। তা বের করে আমাদের বলেন আপনারা যে খোঁচাখুঁচি করেন তার আর্থিক ক্ষতি এত টাকা।

এম এ মান্নান বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন আজ সর্বত্র স্বীকৃত। বিশেষ করে করোনাকালীন সময়ে আমাদের অর্থনীতির উন্নয়ন সারা বিশ্বের চোখে পড়ার মতো। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) ও বিশ্বব্যাংকও তাই বলছে। আর আপনাদের উপস্থাপনায় আজ এ বিষয়গুলো ওঠে এসেছে। দারিদ্রতা দেশে এক সময় আমাদের অনেক ভুগিয়েছে, কিন্তু আমরা এখন সে জায়গায় নেই।

প্রবাস আয়, রপ্তানি ও কৃষির ওপর বাংলাদেশের অর্থনীতি দাঁড়িয়ে আছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এ তিন খাতেই সরকারের অবদান রয়েছে। করোনাকালীন আমরা প্রবাসীদের আয়ের ওপর প্রণোদনা দিয়েছি, যার কারণে তারা বৈধপথে দেশের টাকা পাঠিয়েছেন। তারাই দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রেখেছেন। আর কৃষিতে প্রধানমন্ত্রী ভর্তুকি দিয়ে যাচ্ছে। তাই আমরা কৃষির চাকা সচল রাখতে পেরেছি।

করোনাকালীন সময়ে প্রধানমন্ত্রীর সব থেকে বড় কৌশল ছিলো সর্বাত্বক লকডা্উন না দেওয়া। এত যেটা হয়েছে তা অর্থনীতির জন্য সুখকর। ফলে দেখতে পারছি এখন রপ্তানি আয় বাড়ছে বিশেষ করে পোশাকখাতে। তবে সামনের দিনে ওমিক্রনের কিছু চ্যালেঞ্জ আসতে পারে। আশাকরি, আমরা আগের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে তা মোকাবিলা করতে পারবো।

এসময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. সায়মা হক বিদিশা বলেন, আমারা দেখছি অর্থনীতি পুনরুদ্ধার হচ্ছে। তবে, এই পুনরুদ্ধার সবার জন্য এক না। কেউ কেউ তার আগের অবস্থানে এখনো ফিরে যেতে পারেনি। বিশেষ করে যারা দিরমজুর, নিম্নআয়ের মানুষ। শিক্ষায় আমাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। বাল্যবিয়ে বেড়েছে। এসব দিকে আগে আমাদের নজর দিতে হবে। সামনে বাজেট আসছে সেই বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তাখাতে বরাদ্দ বাড়ানোর পাশাপাশি, বিশেষ অঞ্চলকে গুরুত্ব দিতে হবে।

ওয়েবনিয়ারে অন্যান্যদের মধ্যে পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর, বাংলাদেশ পোশাক রফতানিকারক ও মালিক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ফারুক হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ শীর্ষ খবর