সূচকে যোগ হলো ১১৪ পয়েন্ট

সূচকে যোগ হলো ১১৪ পয়েন্ট

প্রায় এক মাস মন্দার মধ্যে থাকা শেয়ারবাজারে আবার কিছুটা ঊর্ধ্বমুখী ধারা দেখা দিয়েছে। বুধবার (১০ নভেম্বর) প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সবকটি মূল্যসূচকের বড় উত্থান হয়েছে।

সূচকের বড় উত্থানের সঙ্গে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। সেই লেনদেনের পরিমাণও আগের দিনের তুলনায় বেড়েছে। এর মাধ্যমে টানা দুই কার্যদিবস শেয়ারবাজারে বড় উত্থান হলো।

এর প্রায় এক মাস ধরে মন্দার মধ্যে পতিত হয় শেয়ারবাজার। মূলত গত ৩ অক্টোবরের পর থেকে শেয়ারবাজারে পতন প্রবণতা শুরু হয়। মাঝে মধ্যে কিছু প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম বাড়লেও এক মাস ধরে (চলতি সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস পর্যন্ত) অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের দরপতন হয়।

এতে ৩ অক্টোবর থেকে ৮ নভেম্বরের মধ্যে ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ৫৫৫ পয়েন্ট কমে যায়। এর মধ্যে চলতি সপ্তাহের প্রথম দুই কার্যদিবসেই সূচক একশ পয়েন্ট পড়ে যায়।

এ পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার (৯ নভেম্বর) শেয়ারবাজারে বড় উত্থান হয়। আর বুধবার লেনদেন শুরু হতেই বড় উত্থানের আভাস পাওয়া যায়। এদিন শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরু হয় বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার মাধ্যমে। ফলে লেনদেন শুরু হতেই ডিএসইর প্রধান সূচক ৬০ পয়েন্ট বেড়ে যায়।

শুরুতে বড় উত্থানের প্রবণতা লেনদেনের শেষদিকেও দেখা যায়। ফলে প্রধান সূচক শতাধিক পয়েন্ট বাড়ার মাধ্যমে দিনের লেনদেন শেষ হয়। দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ১১৪ পয়েন্ট বেড়ে ৬ হাজার ৯৮১ পয়েন্টে উঠে আসে।

অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ ২৪ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৪৭৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক ৪৪ পয়েন্ট কমে ২ হাজার ৬৬০ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

দিনভার ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া ৩০১ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৪৩টির। আর ৩১টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ১৬৩ কোটি ৭৮ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ১ হাজার ৭ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। সে হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ১৫৬ কোটি ৩ লাখ টাকা।

টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে বেক্সিমকোর শেয়ার। কোম্পানিটির ১৪৫ কোটি ৩০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা ওরিয়ন ফার্মার ৬১ কোটি ১৬ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। ৪৬ কোটি ৬১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ।

এছাড়া ডিএসইতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ ১০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে- বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস, আইএফআইসি ব্যাংক, কাট্টালী টেক্সটাইল, আলিফ মেনুফেকচারিং, ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স, এনআরবিসি ব্যাংক এবং সাইফ পাওয়ার।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই বেড়েছে ৩৩৬ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৩৪ কোটি ২৯ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেয়া ২৮২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২২৮টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৩০টির এবং ২৪টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

অর্থ বাণিজ্য শীর্ষ খবর