হামাসের কাছে যে ১৫ ধরনের রকেট মিসাইল রয়েছে

হামাসের কাছে যে ১৫ ধরনের রকেট মিসাইল রয়েছে

দখলদার ইসরাইলি বাহিনীর বর্বরতায় মুক্তিকামী ফিলিস্তিনিদের মৃত্যুর তালিকা দীর্ঘ হচ্ছে। যখন তখন বিমান হামলা চালাচ্ছে ইহুহিবাদীরা। ফিলিস্তিনিদের মৃত্যুর তালিকা দীর্ঘ হলেও ইসরাইলি বাহিনীর ধারণাকে এবার টপকে গেছে তারা। দখলদাররা ভেবেছিলো প্রতিবারের মতো এবারও ফিলিস্তিনিরা কিছুই করতে পারবে না তাদের। তাদের ধারণা ভুল প্রমাণ করে বিশেষ নজর কেড়েছে ফিলিস্তিনির স্বাধীনতাকামী সামরিক বাহিনী হামাস।

হামাসের কাছে অন্তত ১৫ ধরনের রকেট রয়েছে বলে এক সমীক্ষায় দেখা গেছে। সম্প্রতি হামাসের কিছু রকেট ইসরাইলের শক্তিশালী আয়রন ডোমকে ফাঁকি দিয়ে তেল আবিবসহ বেশ কয়েকটি শহরে আঘাত হানতে সক্ষম হয়েছে।

মধ্যপ্রাচ্যের ফ্রিল্যান্স সমরাস্ত্র বিশ্লেষক ফাবিয়ান হিনজ – এর বরাত দিয়ে জার্মানি ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান স্ট্যাটিস্টা জানিয়েছে, হামাসের কাছে অন্তত ১৫ ধরনের আন-গাইডেড অর্থ্যাৎ নিক্ষেপণের পর যা নিয়ন্ত্রণ করা যায় না এমন রকেট মিসাইল রয়েছে। এসব মিসাইলের মধ্যে বেশির ভাগই হামাসের নিজস্ব উৎপাদন। এছাড়াও ইরান ও সিরিয়া থেকেও রকেট সংগ্রহ করে হামাস।

ফাবিয়ানের মতে, হামাসের কাছে থাকা সব চেয়ে কম শক্তিশালী রকেটটি হচ্ছে ইরান থেকে সংগ্রহ করা ১০৭ মিলিমিটারের রকেট। এটির পাল্লা ৮ কিলোমিটার। দ্বিতীয় রকেটটি হচ্ছে ১২ কিলোমিটার পাল্লার কিউ-১২ রকেট। তৃতীয় শক্তিশালী রকেট ২০ কিলোমিটার পাল্লার কিউ-২০ রকেট মিসাইল। এ দুটি রকেটই হামাস নিজস্বভাবে উৎপাদন করে থাকে।

৪০ কিলোমিটার পাল্লার আরও একটি রকেট আছে হামাসের। ১২২ মিলিমিটার রকেট। ৪০ কিলোমিটার পাল্লার নিজস্ব উৎপাদনের এস-৪০ রকেটও আছে হামাসের কাছে। ৭৫ কিলোমিটার পাল্লার ইরান থেকে সংগৃহীত রকেট ফজর-৩ ও আছে হামাসের দখলে। একই পাল্লার দেশীয় উৎপাদনের আরেকটি রকেট রয়েছে হামাসের; এম-৭৫।

৮০ ও ৯০ কিলোমিটার পাল্লার আরও দুটি রকেট রয়েছে হামাসের নিজস্ব উৎপাদনের; জে-৮০ ও জে-৯০। সর্বাধিক শক্তিশালী বাকি তিনটি রকেটের প্রতিটিই ১০০ কিলোমিটার অধিক দূরত্বে আঘাত হানতে সক্ষম। এগুলোর মধ্যে এ-১২০ রকেট ১২০ কিমি পর্যন্ত এবং আর-১৬০ রকেট ১৬০ কিলোমিটার দূরের লক্ষ্যবস্তু পর্যন্ত আঘাত হানতে সক্ষম।

হামাসের দখলে থাকা সর্বাধিক শক্তিশালী রকেটটি হচ্ছে এম-৩০২। ১৮০ কিলোমিটার দূর পর্যন্ত আঘাত হানতে সক্ষম এই মিসাইল সিরিয়া থেকে সংগ্রহ করে হামাস।

বাংলাদেশ শীর্ষ খবর