প্রত্যেক উপজেলায় ফায়ার স্টেশন নির্মাণ করব

প্রত্যেক উপজেলায় ফায়ার স্টেশন নির্মাণ করব

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘দেশের প্রত্যেকটি উপজেলায় ফায়ার স্টেশন নির্মাণ করব। এই পর্যন্ত ১০০টি ফায়ার স্টেশন নির্মাণ করেছি। ২৯৮টি ফায়ার স্টেশন নির্মাণ কার্যক্রম adfafadচলছে। ২৫১টি বাস্তবায়নের পথে। চারটি প্রকল্পের আওতায় আমরা এই ফায়ার স্টেশন নির্মাণ করছি। ২০১৬ সালের মধ্যে আমরা পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়ন করব।’ আজ বুধবার সকালে রাজধানীর মিরপুরে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ-২০১৫ এর উদ্ধোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘শুধু নির্মাণ করলেই হবে না। এই জন্য বিভিন্ন যন্ত্রপাতি দরকার। এই জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ হাতে নিয়েছি। মোট ৫৫৯টি ফায়ার স্টেশন নির্মাণ করব। এই জন্য ৮৩৫৪ জন জনবল বৃদ্ধি করেছি, যা আগামীতে ১৫ হাজারে উন্নীত করব। আধুনিক যন্ত্রপাতি ক্রয়ের প্রক্রিয়া চলছে এবং এটি অব্যাহত থাকবে। যার ফলে এ ক্ষেত্রে যুগান্তকারী পরিবর্তন আসবে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, অগ্নিকাণ্ড ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করতে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।
‘দুর্যোগ-দুর্ঘটনা ঝুঁকি হ্রাসে প্রয়োজন জনসচেতনতা ও প্রশিক্ষণ’ এ স্লোগান নিয়ে বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ-২০১৫।
জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশ ভূমিকম্প প্রবণ দেশ উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রতি নিয়ত যেহেতু নতুন নতুন অবকাঠামো গড়ে উঠছে, সেহেতু ভূমিকম্পের প্রকটতা আরও বাড়ছে। দুর্যোগ দুর্ঘটনা ঝুঁকি হ্রাস এবং উদ্ধার তৎপরতা জোরদার আমাদের প্রধান চ্যালেঞ্জ।’
তিনি বলেন, দুর্যোগ মোকাবিলায় জাতির পিতা বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। সমগ্র দেশে ফায়ার সার্ভিস নির্মাণ হবে, এটা তার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্য হলেও সত্য, ৭৫ এর ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হত্যার পর এই কাজ আর বেশি দূর এগোয়নি।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসে, তখন আমরা দেখি এই সেবা খাতটি অত্যন্ত অবহেলিত অবস্থায় পড়ে আছে। তখন আমরা কতগুলো পদক্ষেপ নেই। ১৭টি নতুন ফায়ার স্টেশন স্থাপনসহ এটিকে ঢেলে সাজানোর চেষ্টা করি। ২০০৯ সালে আমরা সরকার গঠনের পর বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি।’
Featured বাংলাদেশ শীর্ষ খবর