প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের মংলা-ঘষিয়াখালী চ্যানেল পরিদর্শন

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের মংলা-ঘষিয়াখালী চ্যানেল পরিদর্শন

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদের নের্তৃত্বে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল 1বাগেরহাটের রামপালে মংলা-ঘষিয়াখালী চ্যানেল পরিদর্শন শুরু করেছেন। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে মংলা-ঘষিয়াখালী আন্তর্জাতিক নৌ-চ্যানেলের কালিগঞ্জ এলাকায় পৌঁছায় মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে অর্ধশতাধিক উর্ধ্বতন কর্মকর্তার প্রতিনিধি দল। পরে তারা নৌ-চ্যানেল খনন ও চ্যানেল সংলগ্ন সংযোগ খালগুলোর বাঁধ অপসারণ কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে ওই প্রতিনিধি দলে গুরুতপূর্ণ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ১১জন সচিবসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের অর্ধশতাধিক উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা দু’দিনের সফরে বুধবার রাতে বাগেরহাট আসেন।
মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের বলেন, নাব্যতা হারানো মংলা-ঘষিয়াখালি নৌ-চ্যানেল রক্ষায় বিভিন্ন সময় সরকার পদক্ষেপ নেয়। বর্তমান সরকার শুরু থেকেই মংলা বন্দরকে সচল করতে কাজ শুরু করে। চ্যানেলটি সচল হলে মংলা বন্দরও সচল হবে। একই সাথে যাত্রী সুবিধার পাশাপাশি মংলা বন্দর থেকে সারাদেশে স্বল্প খরচে পণ্য পরিবহণ সহজ হবে। তিনি বলেন, অবৈধ বাঁধের কারণে অনেকগুলো নদী ও খাল বন্ধ রয়েছে। এগুলো দ্রুত প্রবাহমান করতে স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সাথে কাজ শুরু হয়েছে। এতে ঘষিয়াখালী চ্যানেলের নাব্যতার রক্ষার পাশাপাশি এলাকার জীবনমানের উন্নয়ন হবে। সরেজমিন পরিদর্শন করলে স্থানীয় সমস্যা ও সম্ভাবনাগুলো সহজে চি‎িহ্নত করা সম্ভব হয়। এ জন্য সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা সরেজমিনে আসছেন।
এ সময় বাগেরহাট-মংলার সামগ্রিক উন্নয়নের জন্য বড় বড় প্রকল্প যেমন- বন্দরের আধুনিকায়ন, মংলা-ঘষিয়াখালী চ্যানেল সচল করা, হয়রত খানজাহান (রাঃ) বিমান বন্দর, পর্যটন শিল্পের বিকাশ, রেল লাইন স্থাপন, বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ, সাইলো, ইপিজেডসহ বিশেষ অর্থনৈতিক জোন হিসেবে এই অঞ্চলকে সমৃদ্ধ অর্থনৈতিক এলাকা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে সফরটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Featured বাংলাদেশ