আজ বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস

আজ বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস

আজ মঙ্গলবার বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস। অন্যান্য বছরের মতো এবারও বিশ্বের বিভিন্ন দেশের 5পাশাপাশি বাংলাদেশে এ দিবসটি পালনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ উপলক্ষে সরকারের পরিসংখ্যান ব্যুরোসহ বিভিন্ন পর্যায়ে নান কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। দিবসটিকে সামনে রেখে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলাদা আলাদা বাণী দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেন, পরিসংখ্যান উন্নয়ন ও অগ্রগতির পরিমাপক। তিনি বলেন, অর্থনীতিসহ সমাজের সকল কর্মকা-ের গতি প্রকৃতি নির্ণয় ও উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়নে পরিসংখ্যানের গুরুত্ব অপরিসীম। মূলত সঠিক পরিসংখ্যানই পরিকল্পনা প্রণয়নের পূর্বশর্ত।
মো. আবদুল হামিদ বলেন, আজকাল পরিসংখ্যান কেবল অর্থনীতির পরিমাপক হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে না, বরং তা প্রচলিত পরিমাপের সীমানা পেরিয়ে মানুষের আয়ুষ্কাল, রুচি, পছন্দ-অপছন্দ, স্বাচ্ছন্দ্য-সন্তুষ্টি তথা জীবনবোধের মতো বিমূর্ত বিষয়গুলোর মাপকাঠি হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশসহ বিশ্বের উন্নয়নশীল ও উন্নত দেশগুলোর প্রকৃত অর্থনৈতিক ও সামাজিক চিত্র তুলে ধরতে পরিসংখ্যানের বিকল্প নেই। এ কারণে বাংলাদেশ সরকার পরিসংখ্যান কার্যক্রমকে আধুনিকায়ন করে তা জাতীয় উন্নয়নে ব্যবহারে অত্যন্ত আন্তরিক।
জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যবস্থার উন্নয়নে পরিসংখ্যান আইন ২০১৩ ও এতদসংক্রান্ত জাতীয় কৌশলপত্র প্রণয়ন করা হয়েছে জেনে রাষ্ট্রপতি খুশি হয়েছেন বলে উল্লেখ করেন। বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস পালনের মধ্য দিয়ে দেশের সকল খাতে পরিসংখ্যানের প্রয়োগ বৃদ্ধি পাবে এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের গতিও ত্বরান্বিত হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস ২০১৫ উদ্যাপনের সার্বিক সাফল্য কামনা করি।
এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে বলেন, টেকসই উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়ন ও সিদ্ধান্ত গ্রহণে তথ্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, নির্ভরযোগ্য ও সময়োপযোগী পরিসংখ্যান প্রণয়নে জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যবস্থার সক্ষমতা নিশ্চিত করা অপরিহার্য।
শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমান সরকার জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যবস্থার উন্নয়নে অফিসিয়াল পরিসংখ্যানের গুরুত্ব বিবেচনায় পরিসংখ্যান আইন, ২০১৩ প্রণয়ন করেছে। পরিসংখ্যান উন্নয়নে জাতীয় কৌশলপত্র ২০১৩ অনুমোদন করেছে। পরিসংখ্যান ব্যবস্থাকে সার্বিক উন্নয়ন পরিকল্পনার মূলভিত্তি বিবেচনা করে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোকে কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত শক্তিশালী করার উদ্যোগ নিয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে আমরা নি¤œ-মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছি। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করার লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করছি। এ লক্ষ্য অর্জনে দেশের সকল পরিকল্পনা প্রণয়ন ও সিদ্ধান্ত গ্রহণে সরকারের পাশাপাশি অন্যান্য তথ্য ব্যবহারকারী সংস্থা ও গবেষকগণের মধ্যে পরিসংখ্যানের ব্যবহার আরও সম্প্রসারিত করতে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি তিনি আহ্বান জানান। দিবসটি উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসূচিরও সার্বিক সাফল্য কামনা করেন তিনি।

Featured অর্থ বাণিজ্য