চলচ্চিত্রের ব্যস্ত মুখ আমান

চলচ্চিত্রের ব্যস্ত মুখ আমান

পুরো নাম মোহম্মদ আসিফ রেজা আমান। আমাদের দেশের চলচ্চিত্রের দুর্দিনেও কাজ করে যাচ্ছেন অবিরাম। ছবির শ্যুটিং নিয়ে কাটাচ্ছেন চরম ব্যস্ত সময়। হাতে তাঁর এখন চারটি সিনেমা। ম‍ুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে আরো পাঁচটি।

সম্প্রতি শ্যুটিং শেষ করেছেন মুনসুর আলীর সিনেমা `সংগ্রাম`। ২২ নভেম্বর থেকে শুরু করবেন বাবুল রেজার ‘এক পায়ে নুপুর’। দুটি ছবি সিনেমাতেই তাকে দেখা যাবে ভিন্ন চরিত্রে। `সংগ্রাম` সিনেমাতে দেখা যাবে একজন মুক্তিযোদ্ধার চরিত্রে এবং ‘এক পায়ে নুপুর’-এ একজন জমিদারের ছেলের চরিত্রে।

কিন্তু ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন থেকে এলএলবি পাশ করা একটি ছেলে হঠাৎ চলচ্চিত্র অঙ্গনে কীভাবে আসলেন?

‘‘২০০৮ সালের কথা। আমি একদিন আমার এলাকা পল্টনের একটি স্টুডিওতে কাজে গিয়েছিলাম। সেখানে পরিচয় হয় এল কে লিটন নামে একজন ফটোগ্রাফারের সঙ্গে। প্রযোজক গোলাম মোরশেদের সঙ্গে পরিচয় হয় তার উৎসাহেই । তারপর পরিচালক হাফিজ উদ্দিনের হাত ধরেই প্রথম বড় পর্দায় কাজ শুরু।’’

আমান অভিনীত প্রথম সিনেমা হাফিজ উদ্দিনের ‘সেই তুফান” হলেও প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমা ছিল রেজা লতিফের ‘ভালোবাসার শেষ নেই’। সিনেমাটি মুক্তি পায় ২০১০ সালে। আমানের বিপরীতে নায়িকা ছিলেন নিপুণ।

এরপর ক্রমান্বয়ে আমান অভিনয় করেছেন প্রায় ‍২৯টির মতো সিনেমায় । তবে এখন পর্যন্ত মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমার সংখ্যা ১২টি। এর মধ্যে- শওকত জামিলের ‘যেখানে তুমি সেখানে আমি’, অপূর্ব রানার ‘জীবনেও তুমি মরণেও তুমি’, ‘পালাবার পথ নেই’, পি এ কাজলের ‘পিরিতির আগুন জ্বলে দিগুণ’,  মনতাজুর রহমান আকবরের ‘বাজারের কুলি’ উল্লেখযোগ্য।

সব মিলিয়ে এখন রীতিমতো দৌড়ের উপর আছেন আমান। এ সময়ের ব্যস্ততম নায়কের মধ্যে একজন তিনি। নতুন সব সিনেমার কাজ নিয়ে এ বছরের প্রায় পুরো সময়টাই থাকবেন ক্যামেরার সামনে।

হাসতে হাসতে নিজেই বললেন, “সকালে ঘুম থেকে উঠেই কাজের জন্য দৌঁড়াতে থাকি। কাজ যেন পিছু ছাড়ছে না। তবে আমি কাজকেই ভালোবাসি। আর এর পেছনে বড় অবদান আমার বাবার। তার উৎসাহ না থাকলে আমি এতদূর আসতে পারতাম না।”

আমানের বাবা আবু নাসের একজন ব্যবসায়ী । মা জাহানারা বেগম যশোর জেলার একজন বিচারক পদে কর্মরত। পরিবারে দুই বোন  এক ভাইয়ের মধ্যে তাঁর অবস্থান প্রথম। ছোট দুই বোন সামিনা ও সাফিনা ওয়াহিদ প্রায়ই তাঁর কাজের প্রশংসা করেন।

দেশের মুক্তিযুদ্ধের কাহিনী নিয়ে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ চলচ্চিত্র নির্মাতা মুনসুর আলী গত ৯ অক্টোবর থেকে নির্মাণ শুরু করেছেন চলচ্চিত্র `সংগ্রাম`।
এর গল্পে দেখা যাবে বাংলাদেশে জন্ম নেওয়া এক ব্রিটিশ নাগরিক লন্ডনে একটি ইংরেজি চ্যানেলের মুখোমুখি হয়েছেন। তিনি ফ্ল্যাশব্যাকে মুক্তিযুদ্ধ পূর্ববর্তী সময়ে তাঁর জীবনের প্রেমের গল্প বলছেন। পাশাপাশি বর্ণনা করছেন মুক্তিযুদ্ধের সময়কার বিভিন্ন ঘটনা। ফ্ল্যাশব্যাকে এসে গল্পের প্রেমিক ‘করিম’ চরিত্রে অভিনয় করছেন আমান। তার বিপরীতে আশা চরিত্রে অভিনয় করছেন মডেল রুহি।

আমান এ সিনেমাটি নিয়ে অনেক আশাবাদী। তিনি বলেন, “এটা আমার জন্য সত্যিই সৌভাগ্যের যে, এমন একটি আন্তর্জাতিকমানের ছবিতে অভিনয় করার সুযোগ পেয়েছি। সিনেমার পরিচালক মুনসুর আলী লন্ডনের লাইমলাইট ফিল্ম অ্যাওয়ার্ডসের প্রতিষ্ঠাতা। সিনেমাটি আন্তর্জাতিকভাবে তিনটি ভাষায় মুক্তি পাবে। আমি সত্যিই তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ।”

বর্তমানে মুক্তির অপেক্ষায় থাকা তার ছুবগুলো হলো- জি সরকারের ‘জান’, রকিবুল আলমের ‘জান তুমি প্রাণ তুমি’, মোহাম্মদ হান্নানের ‘শিখণ্ডি কথা’, এনায়েত করিমের ‘বৌ পাগল’ এবং এফ আই মানিকের ‘এ দেশ তোমার আমার‌’।

আমান সিনেমার পাশাপাশি মডেল হয়েছেন তিনটি বিজ্ঞাপনেও। নায়িকা পূর্ণিমার সঙ্গে ‘শাপলা থ্রিপিচ’, এবং লামিয়া মিমোর সঙ্গে ‘সান এয়ার কন্ডিশন’ ও ‘সান
ফ্রিজ’ এর। সবকটি বিজ্ঞাপনই বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচার হচ্ছে।

এছাড়া মিনহাজ কিবরিয়ার ‘শতরূপে শতবার’, সাদ্দাম মাসুমের ‘বিয়ে হল বাসর হল না’, বাবুল রেজার ‘ভালেবাসার বন্ধন’ এবং আনোয়ার সিরাজীর ‘ভাবীর আদর’ সহ বেশ কিছু সিনেমার শ্যুটিং চলছে।

সবশেষে জানতে চাইলাম তাঁর জীবনের টার্গেট কি? বললেন, “চলচ্চিত্রের অবস্থা ভালো না হলেও, আমার বিশ্বাস ভালো জায়গায় একদিন পৌঁছাবেই। আর সে দিনটিও খুব দূরে নয়। আমি চাই আবার আমার প্রিয় নায়ক সালমানশাহর মতো ভালো কিছু কাজ করে যেতে, যেন সবাই আমাকে চলচ্চিত্রের আমান বলে চেনেন।’

বিনোদন