টাঙ্গাইল-৩ জানাবে সরকারকে মানুষ চায় না

টাঙ্গাইল-৩ জানাবে সরকারকে মানুষ চায় না

একটা পদ্মাসেতু নিয়ে কতদিন আলোচনা শুনছি। কিন্তু কাজ শুরু করতে পারছে না। এ সরকার পদ্মাসেতু করতে পারবে না। আমি ক্ষমতায় গেলে পদ্মাসেতু করব।

সোমবার টাঙ্গাইলের কালিহাতি বাসস্ট্যান্ড মোড়ে এক জনসভায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ একথা বলেন।

তিনি বলেন, “যমুনাসেতু নির্মাণে আমি বিশ্বব্যাংকের কাছে ধরনা দেই নাই। সারচার্জ এর মাধ্যমে দেশীয় সোর্স থেকে ৫০০ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছিলাম। পরে বিশ্বব্যাংক এসেছে।”

তিনি তার শাসন আমলের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের বিবরণ দিয়ে বলেন, “জাতীয় পার্টির শাসন আমলে ৬টি সার কারখানা স্থাপন করেছিলাম। এ সরকার একটিও করতে পারেনি।”

টাঙ্গাইলের নির্বাচন সর্ম্পকে তিনি বলেন, “টাঙ্গাইল-৩ আসনে জয় পরাজয়ের কারণে সরকারের ক্ষতি বা পতন হবে না। তবে এর মাধ্যমে সারা দেশের মানুষের কাছে একটা পরিবর্তনের মেসেজ চলে যাবে যে, সরকারকে মানুষ চায় না।”

আগামী দিনে জাতীয় পার্টি একক নির্বাচন করবে উল্লেখ করে এরশাদ বলেন, “আপনারা টাঙ্গাইল-৩ উপ নির্বাচনকে ছোট করে দেখবেন না। জাতীয় পার্টির প্রাথীকে বিজয়ী করবেন। এটি শুধু একটি আসন নয়, আগামী দিনে ৩০০ আসনের ভাগ্য নির্ধারণ করবে।”

মহাজোটের সমালোচনা করে তিনি বলেন, “মহাজোট করেছি। কিন্তু কী পেয়েছি জানি না। আশা করেছিলাম দেশের উন্নয়ন হবে। শিক্ষার উন্নয়ন হবে, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়ন হবে।কিন্তু কিছুই হয় নি। আজকে ছাত্রদের হাতে বই-খাতার পরিবর্তে পিস্তল এবং রামদা দেখি। প্রকাশ্যে পিস্তল ব্যবহার করা হলেও বিচার হয় না। ছাত্ররা টেন্ডারবাজিতে জড়িয়ে পড়েছে। এভাবে চললে দেশ বিলীন হয়ে যাবে।”

ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের যানজট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “ঘণ্টার পর ঘণ্টা হাজার হাজার যাত্রীরা রাস্তায় আটকে আছে। মহিলা ও শিশুদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।  জনগণের কথা ভাবার সময় দেশের দু’টি প্রধান দলের নেই। তাদের একদল  ক্ষমতায় যাওয়া এবং আরেক দল ক্ষমতায় থাকা নিয়ে ব্যস্ত আছে। আমি ক্ষমতায় থাকলে জনগণের সমস্যার কথা ভাবতাম।”

এরশাদ বলেন, “গণতন্ত্রের স্বার্থে ক্ষমতা ছেড়ে দিয়েছিলাম। আজকে সংসদ এবং গণতন্ত্র অকার্যকর। বিরোধী দল সংসদে যায় না। সংসদ এখন একদলীয় সংসদে পরিণত হয়েছে। “

উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আনোয়ার হোসেন রতন সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমদ, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য গোলাম হাবিব দুলাল, এম এ কাশেম, জিয়াউদ্দিন বাবলু, মীর আবদুস সবুর আসুদ, কেন্দ্রীয় সদস্য চিত্রনায়ক সোহেল রানা, জাতীয় পার্টির কোষাধ্যক্ষ মেজর (অব.) খালেদ আক্তার, টাঙ্গাইল-৩ এর প্রার্থী সৈয়দ আবু ইউসুফ আবদুল্লাহ তুহিন, ছাত্র সমাজের আহ্বায়ক সৈয়দ মিজানুর হিমু প্রমুখ।

সভাশেষে এরশাদ টাঙ্গাইল সার্কিট হাউজের দিকে রওনা দেন। সেখান থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দিবেন বলে জাতীয় পার্টির একটি সূত্র বাংলানিউজকে জানিয়েছে।

অন্যান্য বাংলাদেশ রাজনীতি শীর্ষ খবর