রামুর ঘটনায় দেশীয়-আন্তর্জাতিক মৌলবাদী সংগঠন জড়িত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রামুর ঘটনায় দেশীয়-আন্তর্জাতিক মৌলবাদী সংগঠন জড়িত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রামুর ঘটনায় দেশীয় ও আন্তর্জাতিক মৌলবাদী সংগঠনের জড়িত থাকার অভিযোগ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর বলেছেন, পূর্ব পরিকল্পনা ছাড়া এমন ঘটনা কেউ ঘটাতে পারতো না।

সোমবার সন্ধ্যার আগে মন্ত্রণালয়ের নিজ কক্ষে সাংবাকিদের এসব কথা বলেন তিনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মৌলবাদী সংগঠনের উস্কানিদাতা হিসেবে বিএনপির স্থানীয় সংসদ সদস্য লুৎফুর রহমান কাজলকে দায়ী করেন।

এর আগে বাংলাদেশ বৌদ্ধ সমাজ সুরক্ষা কমিটির সভাপতি সঙ্ঘনায়ক শুদ্ধানন্দ মহাথেরোর নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার পর ‘দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র’ উল্লেখ করে বৌদ্ধ সমাজ সুরক্ষা কমিটির সভাপতি শুদ্ধানন্দ মহাথেরো সাংবাদিকদের বলেন, “মুসলমানদের সঙ্গে আমাদের কোনো দ্বন্দ্ব নেই। মুক্তিযুদ্ধের সময় এক সঙ্গে যুদ্ধ করেছি। হাজার বছরের ইতিহাসে এমন ঘটনা ঘটেনি। এটি অঘটন নয়, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র।”

মহীউদ্দীন খান আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, “রামুর ঘটনায় গান পাউডার, পেট্রোল ও কেরোসিন ব্যবহার করা হয়েছে। পরিকল্পিত না হলে দেশি-বিদেশি মৌলবাদীরা জড়িত না থাকলে এগুলো ব্যবহার করতে পারতেন না।”

বিএনপি-জামায়াত সব সময় ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “ বৌদ্ধদের পূর্ণাঙ্গ নিরাপত্তা দেবে সরকার। রোববার সন্ধ্যা থেকে সোমবার দুপুর পর্যন্ত কক্সবাজারে ৯৩ এবং চট্টগ্রামে ৭৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রামুর ঘটনায় ১৭টি মামলা হয়েছে। মামলায় হত্যার চেষ্টা, লুণ্ঠন ও নারী নির্যাতনের অভিযোগ আনা হয়েছে। যথাযথ আদালতের মাধ্যমে বিচারের জন্য তাদের সমর্পণের সিদ্ধান্ত হয়েছে।”

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “রামুর ঘটনায় যথাযথ পদক্ষেপ নিতে স্থানীয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে শৈথিল্য দেখানোর অভিযোগে কমিটি গঠন করা হয়েছে। অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনারের নেতৃত্বে গঠিত প্রশাসনিক তদন্ত গঠিত আগামী ১০ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দেবে। তদন্ত প্রতিবেদনে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

বাংলাদেশ বৌদ্ধ সমাজ সুরক্ষা কমিটিসহ তিনটি সংগঠন সরকারের তাৎক্ষণিক পদক্ষেপে ধন্যবাদ জানাতে এসেছিল উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “মহলবিশেষের উস্কানিতে এ ঘটনা ঘটার পরও তারা বাংলাদেশের প্রতি অনুগত থাকবেন।”

স্থানীয় সাংসদ লুৎফুর রহমান কাজলও এতে উস্কানি দিয়েছেন উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, “কাজল বলেছেন, যারা এটা করেছেন, তাদের খুন করা হোক। এটা ‘রেকর্ডেড’ বিষয়।”

সমাজ সুরক্ষা কমিটির সভাপতি শুদ্ধানন্দ মহাথেরোর নেতৃত্বে বাংলাদেশ বৌদ্ধ ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আশোক বড়ুয়া, বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষি পরিষদ সঙ্ঘের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দেবপ্রিয় বড়ুয়াসহ তিনটি সংগঠনের ১৬জন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

বাংলাদেশ