রাজশাহীতে পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষে আহত ১৫, আটক ২০

রাজশাহীতে পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষে আহত ১৫, আটক ২০

রাজশাহীতে হরতালের দ্বিতীয় দিন সোমবার সকালে বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে বিএনপির কমপক্ষে ১৫ জন নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন।

সকাল সাড়ে ৬টার দিকে মহানগরীর রাজারহাতা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এছাড়া রবিবার রাতে ও সোমবার সকালে ২০ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

সংঘর্ষের ব্যাপারে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সোমবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে রাজারহাতা এলাকার লোকনাথ স্কুলের পাশ থেকে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও মহানগর বিএনপির সভাপতি সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনুর নেতৃত্বে দলের কর্মীরা হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল বের করেন।

মিছিলটি কিছুদূর এগিয়ে সিটি কলেজের সামনে এলে পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় বাধা উপেক্ষা করে তারা মিছিল নিয়ে সামনে যেতে চাইলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়।
নেতাকর্মীরা এ সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল ছুড়তে থাকে। জবাবে পুলিশ ছোড়ে দুই রাউন্ড টিয়ার সেল। এতে কমপক্ষে ১৫ জন নেতাকর্মী আহত হন।

এ পুলিশি হামলার প্রতিবাদে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও মহানগর সভাপতি মিজানুর রহমান মিনু রাস্তায় শুয়ে পড়েন। পরে দলের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীও তার সঙ্গে যোগ দেন।

এদিকে, রবিবার রাতে মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ১৩ জন এবং সকালে মিছিল থেকে সাতজনকে আটক করেছে পুলিশ।

সকালে সংঘর্ষের পর থেকে মহানগরী জুড়ে পুলিশ ও বিএনপির নেতাকর্মীরা বর্তমানে সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন।

অপরদিকে, রাজশাহী রেল স্টেশন থেকে সকালে ঢাকাগামী সিল্কসিটি ও খুলনাগামী কপোতাক্ষ এক্সপ্রেসসহ বিভিন্ন রুটের আন্তঃনগর ট্রেন যথা সময়ে গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে।

এছাড়া হরতালে মহানগরীতে সকাল থেকে কোনো ভারী যানবহন চলাচল না করলেও রিকশা-ভ্যান, ব্যাটারি চালিত অটোরিকশাসহ হালকা যানবাহন চলছে স্বাভাবিকভাবে।

পুলিশের বিশেষ ব্যবস্থা থাকলেও বিআরটিসির কোনো বাস চলাচল করছে না। হরতালের কারণে সকাল থেকেই বন্ধ রয়েছে মহানগরীর বেশিরভাগ এলাকার ব্যবসা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। অফিস-আদালত, ব্যাংক-বীমা প্রতিষ্ঠান খোলা থাকলেও কার্যত সকাল থেকে সেখানে বড় ধরনের কোনো লেনদেন হচ্ছে না।

নগর ভবন, রাজশাহী রেল স্টেশন, বাস টার্মিনাল, চেম্বার ও রেলভবনসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া মহানগরীতে নিয়মিত টহল দিচ্ছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যরা।

রাজনীতি