আবারো ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ উ. কোরিয়ার : বিশ্বব্যাপী তীব্র নিন্দা

আবারো ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ উ. কোরিয়ার : বিশ্বব্যাপী তীব্র নিন্দা

উত্তর কোরিয়া বুধবার সকালে নতুন করে ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছে। দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে উৎক্ষেপণের এ খবর সম্প্রচার করা হয়। তারা এটিকে আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) হিসেবে উল্লেখ করেছে। ক্ষেপণাস্ত্রটি জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে আঘাত হেনেছে।
এদিকে জাপান, যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ কোরিয়া ও জাতিসংঘ এই উৎক্ষেপণের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। খবর এএফপি’র।
উ. কোরিয়া দাবি করেছে, তারা যে নতুন ধরনের আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্রটির পরীক্ষা চালিয়েছে, সেটি যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখ-ে আঘাত হানতে সক্ষম।
উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সরকারের পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়, পিয়ংইয়ং একটি হোয়াসং-১৫ ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালিয়েছে। এটি জুলাই মাসে উৎক্ষিপ্ত আইসিবিএম-এর চেয়ে উন্নত।
তবে নিরপেক্ষভাবে তাদের এই দাবির সত্যতা যাচাই করা যায় নি।
দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান উত্তর কোরিয়ার এই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।
দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে-ইন এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।
তিনি বলেন, উত্তর কোরিয়ার আইসিবিএম-এর সফল উৎক্ষেপণের ফলে এই অঞ্চলের নিরাপত্তা ‘নিয়ন্ত্রণহীন’ হয়ে পড়বে এবং যুক্তরাষ্ট্রও ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী ব্যবস্থা মোতায়েনের বিষয়টি বিবেচনায় আনবে।
এদিকে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে উত্তর কোরিয়ার এই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের ঘটনাকে ‘অসহনীয়’ উল্লেখ করে এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।
অ্যাবে এই ঘটনার প্রেক্ষিতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি অধিবেশনের আহ্বান করেছেন।
উত্তর কোরিয়া এই ক্ষেপণান্ত্র পরীক্ষা চালানোর কয়েক ঘন্টার মধ্যেই অ্যাবে ও ডোনাল্ড ট্রাম্প তাদের প্রতিরক্ষা সক্ষমতা জোরদারে সম্মত হন। তারা পিয়ংইয়ংয়ের অস্ত্র কর্মসূচির বিষয়ে কোরিয়ার ওপর চাপ বাড়াতে দেশটির প্রধান মিত্র চীনের প্রতি আহ্বান জানান।
অ্যাবে বলেন, ‘আমরা কখনোই উত্তর কোরিয়ার উসকানিমূলক আচরণকে ছাড় দেব না।’
তিনি আরো বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় উত্তর কোরিয়ার ওপর সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগ করবে।
এদিকে পেন্টাগনের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে,
‘নর্থ আমেরিকান এরোস্পেস ডিফেন্স কমান্ড এ ব্যাপারে দৃঢ়প্রত্যয়ী যে এই ক্ষেপণাস্ত্র উত্তর আমেরিকা, আমাদের ভূখন্ড বা আমাদের মিত্রদের জন্য কোন ধরনের হুমকি সৃষ্টি করতে পারবে না।’
মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন এই ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন।
জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুতারেস উত্তর কোরিয়ার সর্বশেষ ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।
তিনি এক বিবৃতিতে বলেন, ‘এটা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের শর্তের সুস্পষ্ট লংঘন।’
উত্তর কোরিয়া এ পর্যন্ত যে তিনটি আইসিবিএম-এর পরীক্ষা চালিয়েছে, বুধবারের ক্ষেপণাস্ত্রটি এদের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী।
ক্ষেপণাস্ত্রটি ১৩ হাজার কিলোমিটার দূরের লক্ষবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম। ওয়াশিংটন, যুক্তরাষ্ট্রের অবশিষ্ট পশ্চিম উপকূল, ইউরোপ বা অস্ট্রেলিয়া এই ক্ষেপণাস্ত্রটির আওতায় পড়ে।
উল্লেখ্য, চলতি বছর এই নিয়ে উত্তর কোরিয়া ২০টি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করল।

Leave a Reply