সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ছাত্রলীগের ঐতিহাসিক ভূমিকা ছিল: প্রধানমন্ত্রী

সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ছাত্রলীগের ঐতিহাসিক ভূমিকা ছিল: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে দেশের প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ছাত্রলীগের ঐতিহাসিক ভূমিকা ছিল। এই ছাত্রলীগ একটি ঐতিহ্যবাহী সংগঠন। এই ঐতিহ্য বজায় রেখে জাতির পিতার গড়া এই সংগঠনের প্রত্যেকটি সদস্যকে মানুষের কল্যাণ নিয়ে ভাবতে হবে।’

আজ শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছাত্রলীগের জাতীয় কাউন্সিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমিও ছাত্রলীগের একজন কর্মী ছিলাম।

তিনি বলেন, আমাদের গণতান্ত্রিক আন্দোলন থেকে প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে ছাত্রলীগের অবদান আছে। বাঙালির অর্জনের সঙ্গে ছাত্রলীগ ওতোপ্রতোভাবে জড়িত।

ছাত্রলীগের প্রশংসা করে শেখ হাসিনা বলেন, বিশেষ করে ওয়ান-ইলেভেনের পর যখন আমাকে বন্দী করে রাখা হয়েছিল তখন মহানগর আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ মিলে আমার মুক্তির জন্য ২৫ লাখ স্বাক্ষর সংগ্রহ করে জমা দিয়েছিল। আমি যখন বিদেশে ছিলাম তখন তৎকালীন সরকার আমাকে দেশে ফিরে আসতে বাধা দিয়েছিল। কিন্তু আমি সব বাধা উপেক্ষা করে দেশে ফিরে এসেছি। তখনও ছাত্রলীগ রাজপথে ভূমিকা রেখেছিল।

শেখ হাসিনা বলেন, দুর্ভাগ্য কিছু কিছু ছাত্রলীগ নেতা বিপথে চলে গেছে। এখনও দুই-একজন বিএনপিতে পাওয়া যাবে। এরা বেঈমান, মুনাফেক, আদর্শহীন।

এ সময় আন্দোলন সংগ্রামে থাকা ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ছাত্রদের কাজ হলো পড়াশুনা করা। তাই তোমরা রাজনীতির পাশাপশি পড়াশুনাও করতে হবে। শিক্ষাঙ্গনে কোন ধরনের নৈরাজ্যে সহ্য করা হবে না।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণে দেরি হওয়ায় মন খারাপ না করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, অবশ্যই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ হবে, আমরা মহাকাশ জয় করব, ইনশা-আল্লাহ।

তিনি আরও বলেন, উৎক্ষেণের মাত্র ৪৬ সেকেন্ড আগে উৎক্ষেপণ বন্ধ হয়ে গেল। এটি খুব সেনসেটিভ বিষয়।

‘আমি জয়কে বলেছিলাম, স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের আগ মুহূর্তে আমাকে ফোন দিবা। ও উৎক্ষেপণের ১৫ মিনিট আগে আমাকে ফোন দেয়। কাউন্ট-ডাউন শুরু হয়। কিন্তু ঠিক ৪৬ সেকেন্ড আগে বন্ধ হয়ে যায়।’

তিনি বলেন, আপনারা জানেন, যারা বিজ্ঞানের ছাত্র তারা জানবেন, যান্ত্রিক ত্রুটি হতেই পারে। এভাবে অনেক স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ বন্ধ হয়ে যায়।

‘আকাশে যদি মেঘ জমে থাকে স্যাটেলাইট যাবে না, বায়ু পরিবর্তন থাকলেও যাবে না। আজ আবারও উৎক্ষেপণের চেষ্টা করা হবে। আগের ঠিক একই সময়ে এটি উৎক্ষেপণ করা হবে। নির্ধারিত সময়ের পরে আরও দুই ঘণ্টা সময় আমরা পাব। আজও যদি সম্ভব না হয় তাহলে নির্মাণ প্রতিষ্ঠান আমাদের আরও একটি স্লট দেবে’- বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

Leave a Reply