মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মাদকের ভয়াল ছোবল থেকে ছেলেমেয়েদের রক্ষা করতে হবে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রেখে উন্নয়নের ধারা বজায় রাখার পাশাপাশি দেশব্যাপী মাদকবিরোধী অভিযান চালিয়ে যেতে হবে।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে কুর্মিটোলা সদর দপ্তরে র‌্যাবের ১৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘আমি র‌্যাবকে অনুরোধ করবো, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যেমন আমরা অভিযান চালিয়ে সাফল্য অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি তেমনি এখন মাদকের বিরুদ্ধেও এই অভিযান অব্যাহত রাখার জন্য।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মাদকদ্রব্য যারা তৈরি করে, যারা বিক্রি করে, যারা পরিবহন করে এবং যারা সেবন করে সকলেই সমানভাবে দোষী। এটাই মাথায় রাখতে হবে এবং সেভাবেই যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মাদকবিরোধী অভিযানে ইতিমধ্যেই যথেষ্ট সাফল্য অর্জিত হয়েছে। আমাদের ছেলেমেয়েরা যাতে এর ছোবল থেকে দূরে থাকতে পারে তার ব্যবস্থা ব্যাপকভাবে নিতে হবে।’

এ বিষয়ে বিশেষভাবে ভূমিকা পালনের জন্য তিনি সবার প্রতি আহ্বান জানান। মাদকের বিরুদ্ধে বড় বড় অভিযানে র‌্যাবের সাফল্যের জন্য র‌্যাবের সদস্যদের তিনি ধন্যবাদ জানান এবং এই অভিযান অব্যাহত রাখার নির্দেশ দেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এবং অতিরিক্ত মহাপুলিশ পরিদর্শক ও র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

সন্ত্রাস, অপহরণ ও জালিয়াতি রোধ এবং জঙ্গিদমন, মাদক নিয়ন্ত্রণ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় র‌্যাবের ভূমিকা সম্পর্কিত এবং সুন্দরবনে র‌্যাবের অভিযানে ২০টি জলদস্যুবাহিনীর ২১৭ জন সদস্যের আত্মসমর্পন ও তাদের সাধারণ জীবনে পুনর্বাসন সম্পর্কিত পৃথক দুটি ভিডিও চিত্র অনুষ্ঠানে পরিবেশন করা হয়।

মন্ত্রী পরিষদ সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, সংসদ সদস্য, তিনবাহিনী প্রধান, মহাপুলিশ পরিদর্শক, মহাপরিচালক বিজিবি, সরকারের ঊর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা, র‌্যাব ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং র‌্যাবের সকল স্তরের কর্মকর্তা ও সদস্যরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানস্থলে এসে পৌঁছালে র‌্যাবের একটি সুসজ্জিত দল প্রধানমন্ত্রীকে গার্ড অব অনার প্রদান করে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী উত্তরা আশকোনা এলাকায় ৮ দশমিক ৫৬ একর জমির ওপর অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত র‌্যাব সদরদপ্তর কমপ্লেক্স নির্মাণের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন।

তিনি শহীদ র‌্যাব সদস্যদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে র‌্যাব সদরদপ্তরে শহীদ স্মৃতি স্তম্ভ ‘প্রেরণা ধারা’র উদ্বোধন করেন।

Leave a Reply