মুমিনদের জন্য জান্নাতের দরজা খোলা রাখার অঙ্গীকার

মুমিনদের জন্য জান্নাতের দরজা খোলা রাখার অঙ্গীকার

আল্লাহ তাআলা জান্নাতিদের লক্ষ্য করে বলবেন, ‘এটি ছিল একটি স্মরণ। (এখন শোন!) মুত্তাকিদের জন্য নিশ্চিতভাবেই রয়েছে উত্তম আবাস; চিরন্তন জান্নাত, যার দরজাগুলো তাদের জন্য খোলা থাকবে। সেখানে তারা বসবে হেলান দিয়ে, বহুবিধ ফলমূল ও পানীয়ের ফরমায়েশ করতে থাকবে এবং তাদের কাছে লজ্জাবতী কম বয়সী স্ত্রীরা থাকবে। এ সব এমন জিনিস; যেগুলো দেয়ার ব্যাপারে তোমাদের সঙ্গে অঙ্গীকার করা হচ্ছে। (আল্লাহ বলেন) এ সব হচ্ছে আমার রিজিক; যা কখনো শেষ হবে না।’ (সুরা সাদ : আয়াত ৪৯-৫৪)

জান্নাত মুমিন মুসলমানের কাঙ্ক্ষিত, শেষ ও চিরস্থায়ী আবাস স্থল। এ বর্ণনা কুরআন-হাদিসের অসংখ্য জায়গায় বার বার এসেছে। এ জান্নাতের দরজা তাঁর বাসিন্দাদের জন্য সব সময় খোলা থাকবে বলে আল্লাহ তাআলা কুরআনে পাকে অঙ্গীকার করেছেন। জান্নাতের দরজা খোলা থাকা সম্পর্কে ৩টি বিবরণ পাওয়া যায়। আর তাহলো-

>> মুমিন বান্দা জান্নাতে প্রবেশ করার জন্য দরজা খোলার চেষ্টা করার কোনো প্রয়োজন হবে না। বরং তাদের মনের ইচ্ছা জাগার সঙ্গে সঙ্গে জান্নাতিদের জন্য জান্নাতের দরজা খুলে যাবে।
>> জান্নাতের ব্যবস্থাপনায় যে সব ফেরেশতা নিয়োজিত থাকবে; তারা জান্নাতিদের দেখামাত্র তাদের জন্য নির্ধারিত জান্নাতের দরজা খুলে দেবে।

কুরআনে কারিমে আল্লাহ তাআলা স্পষ্ট ভাষায় উল্লেখ করেন, ‘এমনকি যখন তারা সেখানে পৌঁছবে এবং তার দরজা আগে থেকেই খোলা থাকবে; তখন জান্নাতের ব্যবস্থাপনায় নিয়োজিত ফেরেশতারা (সম্ভাষন জানিয়ে) বলবে, সালামুন আলাইকুম-শুভাগমন’ চিরকালের জন্য এর মধ্যে প্রবেশ করুন।’ (সুরা যুমার : আয়াত ৭৩)

জান্নাতে প্রবেশের পর একজন জান্নাতি ধারাবাহিকভাবে তাঁর জন্য নির্ধারিত নেয়ামতসমূহ ভোগ করতে থাকবে। আর এ হলো মুমিন বান্দার সঙ্গে মহান আল্লাহ তাআলার ওয়াদা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে চিরস্থায়ী জান্নাত লাভে কুরআন-সুন্নাহর বিধানগুলো দৈনন্দিন জীবন যথাযথ বাস্তবায়ন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Leave a Reply