কটন টেক্সটাইল শ্রমিকের ন্যূনতম মজুরি ৩৬০০ টাকা

কটন টেক্সটাইল শ্রমিকের ন্যূনতম মজুরি ৩৬০০ টাকা

‘কটন টেক্সটাইল’ শিল্প সেক্টরের শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি হচ্ছে ৩ হাজার ৬০০ টাকা। এ খাতের সব শ্রেণির শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরির খসড়া হারের সুপারিশ থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ন্যূনতম মজুরি বোর্ড খসড়াটি প্রস্তুত করেছে। সংশ্লিষ্টদের মতামত নিয়ে শিগগিরই এটি চূড়ান্ত করে আদেশ জারি করা হবে।

‘কটন টেক্সটাইল’ শিল্প সেক্টরের সব শ্রমিকের বিভিন্ন পদবি, কাজের ধরন ও প্রকৃতি, চাকরিকাল, জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা, দক্ষতা ও পারিপার্শ্বিক অবস্থা ইত্যাদি বিবেচনা করে শ্রমিকদের গ্রেড-১ থেকে গ্রেড-১০ এবং কর্মচারীদের গ্রেড-১ থেকে গ্রেড-৬ শ্রেণিতে ভাগ করে ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ করা হচ্ছে।

খসড়ায় ‘কটন টেক্সটাইল’ শিল্পের একজন গ্রেড-১০ এ একজন শ্রমিকের ন্যূনতম মূল মজুরি নির্ধারণ করা হয়েছে ৩ হাজার ৬০০ টাকা। অপরদিকে গ্রেড-১ এর একজন শ্রমিক ৬ হাজার ২০ টাকা হারে মূল মজুরি পাবেন। মূল মজুরির সঙ্গে যুক্ত হবে বাড়ি ভাড়া, চিকিৎসা ও যাতায়াত ভাতা।

সব গ্রেডেই শ্রমিক-কর্মচারীদের বিভাগীয় শহর, জেলা শহর এবং উপজেলা ও অন্যান্য শহর- এই তিন ভাগের ভাগ করা হয়েছে। তিন ক্যাটাগরির শ্রমিকদের মধ্যে মূল মজুরি ও চিকিৎসা ভাতা সমান, তবে ব্যবধান রয়েছে বাড়ি ভাড়া ও যাতায়াত ভাতায়।

খসড়া মজুরি কাঠামো অনুযায়ী, শিক্ষানবিশকালে একজন শ্রমিক ও কর্মচারী মাসিক সর্বসাকুল্যে ৪ হাজার ১০০ টাকা পাবেন। তাদের শিক্ষানবিশকাল হবে ৬ মাস।

এছাড়া সব গ্রেডের শ্রমিক কর্মচারীদের জন্য বাড়ী ভাড়া বিভাগীয় শহরে হবে মূল মজুরির ৭০ শতাংশ, জেলা শহরে হবে মূল মজুরির ৪০ শতাংশ এবং উপজেলা ও অন্যান্য এলাকায় মূল মজুরির ৩৫ শতাংশ। তবে সব গ্রেড ও শ্রেণির শ্রমিক-কর্মচারীরা ৫৫০ টাকা চিকিৎসা ভাতা পাবেন।

যাতায়াত ভাতা সব গ্রেডের বিভাগীয় শহরের শ্রমিক-কর্মচারীরা পাবেন ৫০০ টাকা, জেলা শহরে শ্রমিক-কর্মচারীরা পাবেন ৪০০ টাকা এবং উপজেলা ও অন্যান্য এলাকার শ্রমিক-কর্মচারীরা পাবেন ৩০০ টাকা।

শ্রমিকদের গ্রেড-২ এর মূল বেতন ৫ হাজার ৫০০ টাকা, গ্রেড-৩ এ ৫ হাজার ২৪০ টাকা, গ্রেড-৪ এ ৪ হাজার ৭৮০ টাকা, গ্রেড-৫ এ ৪ হাজার ৫৮০ টাকা, গ্রেড-৬ এ ৪ হাজার ৩৮০ টাকা, গ্রেড-৭ এ ৪ হাজার ২০০ টাকা, গ্রেড-৮ এ ৪ হাজার টাকা ও গ্রেড-৯ এ ৩ হাজার ৮৬০ টাকা রাখা হয়েছে।

কর্মচারীদের গ্রেড-১ এ মূল বেতন ৮ হাজার ১০০ টাকা, গ্রেড-২ এ ৬ হাজার ৫৪০ টাকা, গ্রেড-৩ এ ৫ হাজার ৫০০ টাকা, গ্রেড-৪ এ ৪ হাজার ৪৬০ টাকা, গ্রেড-৫ এ ৩ হাজার ৯৪০ টাকা ও গ্রেড-৬ এ ৩ হাজার ৬০০ টাকা।

এ শিল্প সেক্টরে নিযুক্ত শ্রমিক প্রতি বছর মূল মজুরির ৫ শতাংশ হারে বার্ষিক মজুরি বৃদ্ধির সুবিধা পাবেন বলেও খসড়ায় উল্লেখ করা হয়েছে।

Leave a Reply